প্রথম বিবাহবার্ষিকী কেমন কাটছে, জানতে রোববার দুপুরে প্রথম আলো যোগাযোগ করে শরীফুল রাজের সঙ্গে। রাজ জানালেন, তাঁরা বিবাহবার্ষিকীর মুডে আছেন। গত রাতে ঘরোয়া পরিবেশে বিবাহবার্ষিকীর কেক কেটেছেন। ঢাকার অদূরে একটি নিরিবিলি জায়গায় ঘুরতে এসেছেন। রাজ বলেন, ‘বিকেলের মধ্যেই ফিরে যাব। আজ সন্ধ্যায় বসুন্ধরা স্টার সিনেপ্লেক্সে সপরিবার পরীর সিনেমা “অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন” দেখতে যাব।’

প্রথম বিবাহবার্ষিকীতে পরীর কাছ থেকে কী উপহার পেয়েছেন বা পরীকে কোনো উপহার দিয়েছেন কি না—জানতে চাইলে রাজ বলেন, ‘রাতে কেক কাটার সময় পরী আমাকে আই লাভ ইউ বলেছে, এটাই আমার সেরা উপহার। আমিও বলেছি।’
রাজ বলেন, দেখতে দেখতে বিয়ের একটা বছর চলে গেল। বুঝতেই পারেননি তিনি। এই ভালোবাসা বহুদিন অটুট থাকার আশা করে ঢাকাই ছবির এই নায়ক আরও বলেন, ‘পরী আমাকে অনেক অনেক ভালোবাসে। পরীর ভালোবাসা নিয়ে আরও বহু বছর এভাবে চলতে চাই।’

গত এক বছরে রাজ ও পরীর সংসারে সুখ, আনন্দ যেমন ছিল, তেমনি বেদনাও ছিল। বিয়ে, বাচ্চা—গত এক বছরে পরীমনি ও রাজের সংসারজীবনে কিছু রটনা-ঘটনা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচিত হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে রাজ বলেন, ‘সব মিলিয়েই তো মানুষ। সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা মানুষের জীবনে থাকে। এগুলো চলার পথে মানুষের জীবনের অংশ। তবে এই সময়ে পরী আমার জন্য রাজ্যকে উপহার দিয়েছে। আমি বাবা হতে পেরেছি পরীর জন্য। এর চাইতে সুন্দর জিনিস আর কী হতে পারে।’