‘বীরাঙ্গনা থেকে নেয়েলসন’ নাটক নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন নাট্যমঞ্চে প্রদর্শনী করছে গাজীপুরের মুক্তমঞ্চ নাট্যদল। নাটকটির গল্প লিখেছেন ড. নীলিমা ইব্রাহিম। নাট্যরূপ দিয়েছেন তোসাদ্দেক হোসাইন। আর নির্দেশনা দিয়েছেন রোমানা রুমা। রুমা গাজীপুরের মেয়ে, রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থী।
ইতিমধ্যে এই নাটকের ছয়টি প্রদর্শনী হয়েছে। আরও চারটি প্রদর্শনীর দিন–তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। এই নাটক নিয়ে রুমা বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধে যেসব নারী বীরাঙ্গনা হন, তাঁদেরই একজন তারা ব্যানার্জি। “বীরাঙ্গনা থেকে নেয়েলসন” তাঁকে ঘিরেই মূলত একটা মনোলোগ নাটক। এটাকে আমি সমসাময়িক প্রেক্ষাপটে একটু ভিন্নভাবে ডিজাইন করেছি।’

default-image

‘দেশের প্রত্যেক নারী, যাঁরা কিছু করতে চায়, কিছু হতে চায়, আর সে জন্য প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করছে, কিন্তু সমাজ সেটাকে ভালোভাবে দেখছে না। এই নারীরাও একেকজন যোদ্ধা। আমার নাটকে আমি এই কথাই বলার চেষ্টা করেছি। এখানকার যে শিক্ষার্থীরা এই নাটকে অভিনয় করছেন, তাঁরা আমাদের ইতিহাসের সঙ্গে জড়িত বিষয়টি আত্মস্থ করতে পেরেছেন। এখানকার দর্শকও দারুণভাবে গ্রহণ করেছেন নাটকটা। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে নাটকটি সেই সময়ের সঙ্গে এই সময়ের একটা সংযোগ।’ বলেও যোগ করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

১৯৭১ সালের বীরাঙ্গনাদের যুদ্ধ-পরবর্তী সামাজিক, পারিবারিক অবহেলা, বঞ্চনা তুলে ধরা হয়েছে নাটকটিতে। অভিনয় করেছেন নিকিতা সাহা, সুকণ্ঠ ঠাকুর, পূজা পাল, জিসান মণ্ডল, সিমিন হোসেন, পিয়া মল্লিক, বিমল হাজরা, অনিক রায় প্রমুখ। এই নাটকের অভিনয়শিল্পী নিকিতা সাহা মুক্তিযোদ্ধা ফণীভূষণ সাহার নাতনি। পূজা পালের দাদি ১৯৭১ সালে রাজাকারের নির্যাতনে শহীদ হন।

default-image

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে পশ্চিমবঙ্গ ঘুরে ঘুরে প্রদর্শনী করবে দলটি। আগামী ৩০ মে রবীন্দ্র সদনের তৃপ্তি মিত্র নাট্যগৃহে মঞ্চস্থ হবে। এ ছাড়া মালদহে ২০ মে এবং খরদহে ২ মে প্রদর্শনী হতে পারে নাটকটির।

নাটকটির প্রথম মঞ্চায়ন হয় ২০১৯ সালের ১৬ ডিসেম্বর। পরবর্তীকালে করোনা সংক্রমণের জন্য এই নাটকের মঞ্চায়ন বন্ধ থাকে।

নাটক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন