বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ বিকেলে উৎসব উদ্বোধনের পর ‘সৃজনের আলাপন’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে অংশ নেন নাট্যজন মামুনুর রশীদ, গোলাম সরোয়ার, মলয় ভৌমিক, মীর জাহিদ হাসান, অনন্ত হিরা, বিপ্লব প্রসাদ, শিশির দত্ত, অনিরুদ্ধ ধর প্রমুখ। পরে টিআইসি গ্যালারিতে তির্যক নাট্যস্মারক প্রদর্শনী শুরু হয়। সন্ধ্যায় টিআইসির মুক্তাঙ্গনে শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গনের প্রয়াত ব্যক্তিদের প্রতি শোক ও শ্রদ্ধা জানানো হয়। শেষে মূল মিলনায়তনে তির্যক প্রযোজিত গ্রিক ট্র্যাজেডি সফোক্লিসের ‘ইডিপাস’ মঞ্চস্থ হয়।

কাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় টিআইসি মিলনায়তনে ‘বিশাল বাংলায় নাট্যচর্চা’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তব্য দেবেন অধ্যাপক মলয় ভৌমিক। পর্বটি সঞ্চালনা করবেন নাট্যজন মামুনুর রশীদ। সেমিনারে অংশ নেবেন দেশের বিশিষ্ট নাট্যব্যক্তিরা। বেলা তিনটায় ‘সৃজনে-বরণের কথকতা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানমালায় এ বছর নাটকে একুশে পদকপ্রাপ্ত নাট্যজন আহমেদ ইকবাল হায়দারকে নাট্য ও সংস্কৃতিকর্মীদের পক্ষ থেকে সম্মাননা জানানো হবে। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় তির্যক প্রযোজিত রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘রাজা’ মঞ্চস্থ হবে। সর্বশেষ থাকবে উৎসব সমাপনী অনুষ্ঠানমালা।

default-image

স্বাধীনতা–পরবর্তী সময়ে নাট্যচর্চা শুরু করে তির্যক নাট্যদল। চার দশকের বেশি সময় ধরে নাট্যচর্চার বিকাশে নিয়মিত কাজ করেছে এই দলটি। নতুন নাটক, মহড়া, সেমিনার, প্রশিক্ষণসহ নানাবিধ থিয়েটার কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে সক্রিয় থেকেছে দলটি। তির্যক নাট্যদলের দলপ্রধান আহমেদ ইকবাল হায়দার বলেন, ১৯৭৪ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে দীর্ঘ পথপরিক্রমায় দেশ ও দেশের গণ্ডি পেরিয়ে তির্যক চর্চা ও সৃজনের মাধ্যমে এ ক্ষেত্রটিকে সৃষ্টিশীলতায় পূর্ণ করার কাজে নিয়োজিত রয়েছে। এ পর্যন্ত তির্যক নাট্যদল ৪৪টি নাটকের ২ হাজার ৭৮৬টির বেশি প্রদর্শনী সম্পন্ন করেছে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই ভাবনা ও কর্মে তির্যক হাজার বছরের বাঙালি ঐতিহ্যসন্ধানী। তির্যক বিশ্বাস করে, ‘শিকড় থাকবে মাটিতে, ডালপালা ছড়াবে আকাশে।’ তাই নাট্য প্রয়োগের আঙ্গিকেও তির্যক আত্মীয় করে নিয়েছে বিশ্বখ্যাত নাট্যজনদের রচনা ও আঙ্গিককে।

নাটক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন