বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সূচনা বক্তব্যে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করেছেন তিনি। বাঙালিত্ব ও অসাম্প্রদায়িক চেতনা থেকে কখনোই বিচ্যুত হননি। আবুল হায়াত বলেন, তাঁকে নিয়ে মঞ্চে কথা বলতে হবে, ভাবিনি। বেঁচে থাকলে আজ তাঁর জন্মদিন সবাই মিলে উদ্‌যাপন করতাম। কিন্তু জন্মদিন উদ্‌যাপনের পরিবর্তে আয়োজনটি স্মৃতিচারণায় পরিণত হলো। এই কীর্তিমান মানুষটি সব সময় সৃষ্টির চিন্তায় নিমগ্ন থাকতেন। আজ তাঁর সামনে যদি তাঁর গুণের কথা বলতে পারতাম, তাহলে নিশ্চয়ই খুব খুশি হতেন। মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী। তাঁর মৃত্যু হয়েছে, এটা মেনে নিয়েই বলতে চাই আলী যাকের এক প্রাণপ্রাচুর্যে ভরা মানুষ। গুণী ও আলোকিত এই মানুষটি অভিনয়ে নিষ্ঠাবান ছিলেন।

default-image

পাশাপাশি তাঁর মতো শিশুসুলভ সহজ মানুষ আমি দেখিনি। বলছিলেন সহ-অভিনেত্রী ফেরদৌসী মজুমদার। নাট্যকার আবদুস সেলিমের মতে, আলী যাকের শুধু সেলিব্রিটি ছিলেন না, ছিলেন রুচিমান, পরিশীলিত একজন মানুষ।

default-image

অনুষ্ঠানে আলী যাকেরের প্রিয় গান ‘তুমি ডাক দিয়েছ কোন সকালে’ গেয়ে শোনান রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা এবং প্রিয় কবিতা ‘নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গ’ আবৃত্তি করেন আহকামউল্লাহ। দ্বিতীয় পর্বের স্মৃতিচারণায় অংশ নেন নাট্যজন আতাউর রহমান, লেখক আনোয়ারা সৈয়দ হক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দীন ইউসুফ। এরপর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘তুমি নির্মল করো’ পরিবেশন করেন প্রিয়াঙ্কা গোপ ও জীবনানন্দ দাশের ‘আট বছর আগের একদিন’ কবিতাটি আবৃত্তি করেন শিমুল মুস্তাফা।

তৃতীয় পর্বে স্মৃতিচারণা করেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, অভিনেত্রী শিমূল ইউসুফ ও নাট্যকার মাসুম রেজা। এ সময় বাবা আলী যাকেরের স্মৃতিচারণা করেন ছেলে ইরেশ যাকের। এ পর্ব শেষে মোহিনী চৌধুরীর ‘মুক্তির মন্দির সোপান তলে’ গেয়ে শোনান জয়িতা এবং আলী যাকেরের আত্মজীবনী সেই অরুণোদয়ের থেকে পাঠ করেন ত্রপা মজুমদার।

default-image

চতুর্থ ও শেষ পর্বের স্মৃতিচারণায় অংশ নেন নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার ও তারিক আনাম খান। অনুষ্ঠানের শেষ অংশে স্বামীর স্মৃতিচারণা করেন আলী যাকের-পত্নী সারা যাকের। সবশেষে স্বাধীন বাংলা বেতারের গান ‘পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে’ গেয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি টানেন বাপ্পা মজুমদার।

নাটক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন