এই নির্মাতা জানালেন, রবীন্দ্রনাথের এই গল্পের মূল বিষয়টি ঠিক রেখে একটু নিজের ভাবে কাজটি করেছেন তিনি। বলেন, ‘পর্দায় একটু ভিন্নভাবে সাজিয়েছি গল্পটা। গল্পের মধ্যে চারটি গানও রেখেছি। মুস্তাফা মনোয়ার, ওয়াহিদুল হক, আলী যাকেররা তো রবীন্দ্রনাথ অভিজ্ঞ। তাঁদের কাছ থেকে রবীন্দ্রনাথ সম্পর্কে যতটুকু ধারণ করার সুযোগ হয়েছে আমার, সেই ধারণ থেকে রবীন্দ্রনাথ নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করেছি।’

default-image

এত দিন পর রবীন্দ্রনাথ নিয়ে কাজ করা আগ্রহ হলো কেন? জানতে চাইলে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘রবীন্দ্রনাথ নিয়ে কাজ করা অতটা সহজ নয়। তাঁকে নিয়ে কাজ করতে গেলে সাহস লাগে। এই গল্পের চিত্রনাট্যটি গত বছর করোনাকালে করেছিলাম। এবার হঠাৎ করেই বিটিভি থেকে আমাকে ফোন করে রবীন্দ্রনাথের গল্প নিয়ে একটি নাটক করতে বলা হলো। যেহেতু চিত্রনাট্যটি আগেই করা ছিল, তাই করলাম।’

নাটকটির চিত্রনাট্যও নিমা রহমানের। নাটকের গল্পে দেখা যাবে, জমিদার দক্ষিণাচরণ বাবু রাত আড়াইটার সময় ডাক্তারের বাড়ি গিয়ে ব্যক্তিগত অনুতাপ থেকে নিজের স্মৃতির ঝাঁপি খুলে বসেন। বলতে থাকেন অতীত জীবনের কথা। একপর্যায়ে তিনি প্রথম পক্ষের দাম্পত্য জীবনের কথা বলতে থাকেন। তার প্রথম পক্ষের স্ত্রী করুণা ছিলেন খুবই কর্তব্যপরায়ণ। জমিদার বাবুর অসুখ হলে তার স্ত্রী করুণা রাতদিন সেবাযত্ন করতে গিয়ে নিজেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। এর ভেতর দৃশ্যপটে আগমন হারান ডাক্তারের।

হারান ডাক্তারের মেয়ে মনোরমার সঙ্গে পরিচয় ও প্রণয় গড়ে উঠতে থাকে জমিদারের। মনোরমা ঘটনাচক্রে আসে করুণাকে দেখতে। সেই রাতেই মালিশের ওষুধ খেয়ে ইহলোক ত্যাগ করেন করুণা। প্রথমে ভেঙে পড়লেও জমিদার দক্ষিণাচরণ একসময় মুক্ত বোধ করতে থাকেন। মনোরমার সঙ্গে জমিদারের বিয়ে হয়, কিন্তু এরপরই ঘটতে থাকে অদ্ভুত কিছু ঘটনা।

default-image

‘নিশীথে’ নাটকে অভিনয় করেছেন ইন্তেখাব দিনার, আহসান হাবীব নাসিম, দোয়েল তৃষ্ণা হাওলাদার, উত্তম চক্রবর্তী, মনোজ সেনগুপ্ত, অপু নোমান, গাজী রোকন ও তমা।। নাটকটিতে গান গেয়েছেন বুলবুল ইমলাম ও জয়িতা।

নাটক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন