অভিনয়ের কী কোর্স করলেন?

জামিল স্যারের ওয়ার্কশপ করেছি, সাত দিনের। এটা আমাকে অভিনয়শিল্পী হয়ে উঠতে বেশ সহযোগিতা করেছে। যাঁরা অভিনয় করবেন শুধু তারা নন, সাধারণ মানুষও যদি জামিল স্যারের ওয়ার্কশপ করেন, তাঁদের জীবনে সেটা অনেক ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এই ওয়ার্কশপের মাধ্যমে অনেক কিছু নতুনভাবে আয়ত্ত করতে শিখেছি, চিন্তা করতে শিখেছি। এই ওয়ার্কশপ ফোকাস ঠিক রাখতে সাহায্য করেছে। নিজেকে চিনতে সাহায্য করেছে—আমি কী চাই, সেটা আর কী। এরপর আমি যদি আবার সুযোগ পাই, আবার জামিল স্যারের ওয়ার্কশপ করব।

আপনার অভিনীত সিরিজের প্রথম পর্ব প্রচারের পর কেমন প্রতিক্রিয়া পাচ্ছেন?

ভালো সাড়া পাচ্ছি। আমার বন্ধুরা বলছিল, তুই এত ভালো অভিনয় করবি বুঝিনি। বিনোদন অঙ্গনের পরিচিত অনেকে ফোন করে বলেছেন, তোমার অভিনয় ভালো হয়েছে। ‘প্রথম’ হিসেবে এটা তোমার বেস্ট কাজ। আমারও মনে হলো, নিজেকে অন্যভাবে দেখলাম।

অভিনয়ের আদর্শ হিসেবে কাউকে পেলেন?

সবাইকে আমার ভালো লাগে। আমাদের যে শিল্পীরা আছেন, তাঁরা অনেক পরিশ্রম করেন। তাঁদের কাজ দেখতে সব সময় ভালো লাগে। এককভাবে কাউকে আইডলাইজ করি না। কারণ, প্রতিটি মানুষ ভিন্ন। আমার চিন্তাভাবনা আর তাঁদের চিন্তাভাবনায় অনেক পার্থক্য আছে। আমি কখনই নিজেকে তাঁদের জায়গায় দেখতে চাই না। নিজে নতুন কিছু করে দেখাতে চাই।

শিরিন আক্তার শিলাপর্দায় আপনাকে দেখে পরিবারের সদস্যরা কী বলেছেন?

বিনোদন অঙ্গনে কাজের ক্ষেত্রে আমার মা–বাবা কখনই আমাকে সাপোর্ট করেননি। তবে মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ ২০১৯ হওয়ার পর তাঁরা গর্ববোধ করেছিলেন। তবে তাঁরা চাননি আমি এই পেশায় থাকি। তাঁদের চাওয়া, মেয়ে পড়াশোনা করে একটা চাকরি করবে, বিয়ে করবে, সংসার করবে। এখনো তাঁরা আমার কাজ মেনে নিতে পারেননি। আমার এই কাজ তাঁরা দেখেনওনি। আমার একটা ভাই আছে, সে ভীষণ উৎসাহ দেয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধুরা আছে, তারা সাপোর্ট করে। আমি অনেক লাকি, অসাধারণ সব বন্ধু পেয়েছি।

মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ প্রতিযোগিতার সময় আপনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্থবিজ্ঞান তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন।


আমার পড়া এখনো শেষ হয়নি। করোনার কারণে একটা বড় সেশনজটে পড়েছি। এখনো তৃতীয় বর্ষেই পড়ছি।