বিজ্ঞাপন

ঈদে বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে ‘বিশ্বসুন্দরী’ চলল। প্রতিক্রিয়া পেয়েছেন কোনো?

করোনা একটু কমার পর গত ডিসেম্বরে সিনেমাটি মুক্তি পায়। তারপর থেকে ছবিটি হলে চলেছে। বলা যায়, টেনশন নিয়েই সিনেমাটি মুক্তি দেওয়া হয়েছে। মুক্তির পর থেকে ছবিটির অনেক প্রশংসা পেয়েছি। ডিসেম্বর থেকে আমাদের ইন্ডাস্ট্রিকে সচল করার জন্য নতুন কিছু ভালো সিনেমা দরকার ছিল। সিনেমাটির মুক্তি নিয়ে প্রথম দিকে চিন্তায় ছিলাম।
বেশ কিছু নতুন সিনেমা অনলাইনে মুক্তির পরিকল্পনা রয়েছে।

default-image

কখনো কি মনে হয়েছে, এভাবে আপনার কোনো সিনেমা মুক্তি পেলে সেটা ঝুঁকিপূর্ণ হবে?

সিনেমা হলের বিকল্প নেই। বড় পর্দায় সিনেমা দেখার অনুভূতিই অন্য রকম। অন্ধকার একটি ঘর, বিশাল পর্দা, বিশাল সাউন্ড সিস্টেম একসঙ্গে অনেক মানুষকে আকর্ষণ করে, ধরে রাখে। এমন কিছু দৃশ্য থাকে, যেগুলো বড় পর্দায় যে আবেগ তৈরি করতে পারে, সেটা টেলিভিশন বা মোবাইলে সম্ভব নয়। সিনেমা হলের আবেদন কখনোই ফুরাবে না। তারপরও সময়ের সঙ্গে আমাদের অভ্যস্ত হতে হবে। কোনো মাধ্যমকেই ছোট করে দেখার সুযোগ নেই।

এবারের ঈদ কী কারণে বিশেষ?

দীর্ঘদিন পর রোজার পুরো এক মাস পরিবারের সঙ্গে কাটিয়েছি। বাসায় ছিলাম। সবার সঙ্গে ভালো সময় কাটিয়েছি। এটাই আমার জন্য বিশেষ।

default-image

দেখলাম অনেক সহকর্মী ও বন্ধুর সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন।

লকডাউন থাকায় খুব বেশি বের হইনি। আমরা একসঙ্গে কাজ শুরু করেছিলাম, এমন কিছু ভালো বন্ধু আছি। আগে সবাই ব্যাচেলর ছিলাম। এখন অনেকেই বিয়ে করেছে। এবার সবাই বউ নিয়ে সাক্ষাৎ করেছি। ঘুরেফিরে আগে কে কী করেছি, সেই স্মৃতিচারণা করেছি। একসঙ্গে আমাদের ছোট পর্দায় অনেক সময় কেটেছে।

পরিবারে প্রশংসা পান কী নিয়ে?

আমি ভালো চা বানাতে পারি। বাসায় কোনো অতিথি এলেও তাদের চা বানিয়ে খাওয়াই। তা ছাড়া ঘর গোছাই, নিজের কাজগুলো নিজেই করি।

আর অভিযোগ?

আমার স্ত্রী সব সময় বলে, আমি পরিবারকে সময় দিই না। তার অভিযোগ সত্য। আমি কাজে প্রচুর সময় দিই। ছবির শুটিং করতে সময় দিতে হয় ৪০ দিন। কখনো কখনো ছয় মাসও চলে যায়। এমনও হয়েছে, ‘শান’ ছবির জন্য নানাভাবে তিন বছর লেগে থাকতে হয়েছে। এবার টানা এক মাস বাসায় ছিলাম। এখন আর সময় দেওয়া নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই।

default-image

নিজের কোন দিকটা বদলাতে চান?

আমি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অল্পতেই সিরিয়াস হয়ে যাই। এটা আমার অনেক কাজকে নষ্ট করে দেয়। আমার কম সিরিয়াস হওয়া উচিত। এটা বদলাতে চাই।

ফেসবুকে কখনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার মুখোমুখি হতে হয়?

প্রতিদিনই কমবেশি হয়রানির শিকার হতে হয়। কিছু মানুষ এমন সব মন্তব্য করেন, যেগুলো খুবই কষ্ট দেয়। আমার কোনো দোষ নেই, অথচ অনেকে ঘৃণা ছড়ান, খারাপ ভাষায় মন্তব্য করেন। তাঁরা হয়তো মন্তব্য করে আনন্দ পান। তাঁরা একবারও ভাবেন না, তাঁদের কটু একটি মন্তব্য একজন মানুষের একটা দিন নষ্ট করে দিতে পারে। আমরা চাইলেও কোনো রিঅ্যাক্ট করতে পারি না। তাঁদের অশ্লীল ভাষাটা বহু কষ্টে হজম করতে হয়।

default-image

ব্যক্তি সিয়ামের ওপর এদের এত আক্রোশ কেন?

আমি তাদের কী ক্ষতি করেছি, জানি না। অনেক ভক্তই তাঁদের কাছে জানতে চান, আমি কী করেছি, কেন আমার ওপর এত রাগ। ভক্তদের জন্যই হয়তো স্ত্রীর সঙ্গে একটি ভালো ছবি পোস্ট করলাম, হয়তো কোথাও বেড়াতে যাওয়ার ছবি। সেগুলোতেও বাজে মন্তব্য করে কিছু কিছু লোক। তাঁদের বিবেক যদি বলে যে মানুষকে এভাবে হয়রানি করা উচিত, তাহলে আমার কিছু বলার নেই। এসব মন্তব্য এখন আর দেখি না।

শুটিংয়ে ফিরছেন কবে?

বেশ কিছু সিনেমা আছে হাতে। সবকিছু ঠিক থাকলে এই সপ্তাহে ‘দামাল’ সিনেমার শেষ লটের শুটিং শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

default-image
আলাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন