বিজ্ঞাপন

আপনার স্ত্রী কিংবা পরিবারের কেউ ছবিটি দেখেছেন?

আমার সন্তানের মা ছবিটি এখনো দেখেনি। তবে আমার শ্বশুর-শাশুড়ি দুজনই এক বসায় ছবিটি দেখেছেন। প্রশংসা করেছেন। তাঁদের মতামত আমাকে ভীষণভাবে অনুপ্রাণিত করেছে। এ ছাড়া ফেসবুকে ছবিটি নিয়ে ভক্তরা তাঁদের ভালো লাগার কথা জানিয়েছেন। আমার শ্বশুর-শাশুড়ি দুজনই এর আগে ‘আব্বাস’ ছবিটিও দেখেছিলেন। তবে ‘কসাই’ ছবিতে আমার অভিনয়ের উন্নতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

default-image

এই প্রথম কোনো ছবিতে তথাকথিত নায়ক নয়, চরিত্রাভিনেতা হিসেবে কাজ করেছেন?

ওটিটি প্ল্যাটফর্মে গল্পনির্ভর ছবিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। আমরা যদি ভালো কোনো গল্প না দিতে পারি, সেই ছবিতে যদি সালমান খান, আমির খান, শাহরুখ খান কিংবা শাকিব খানও থাকেন; তা–ও দর্শকের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। আমরা এরই মধ্যে বুঝে গেছি, যদি গল্প ভালো না হয়, একাধিক সুপারস্টার দিয়েও দর্শককে ছবি দেখানো যাবে না। মানুষ এখন সুন্দর গল্প দেখতে চায়। ওটিটি আসার পর এটা আরও বেশি প্রমাণিত হয়েছে। আমার নিজের ছবির ক্ষেত্রেও প্রমাণ পেয়েছি। এ ছবিতে আবির চরিত্রটি সবাই ভালোভাবে নিয়েছে। নতুন এক নিরবকে সবাই দেখেছে।

default-image

নায়ক-নায়িকানির্ভর ছবি তাহলে থাকবে না?

থাকবে না কেন, অবশ্যই থাকবে। নায়ক-নায়িকানির্ভর ছবি মানেই যে গল্পনির্ভর নয়, তা কিন্তু না। আমরা ছবিতে কাল্পনিক গল্প যেমন দেখছি, আবার বাস্তবের গল্পও দেখছি। সিনেমা আমরা দেখি আনন্দ পেতে, পছন্দের নায়ক-নায়িকাকে দেখব বলে।

‘কসাই’ ছবির শেষ দেখে মনে হলো ‘শেষ হয়ে হইল না শেষ’?

ঠিকই ধরেছেন। আমরা গল্পটাকে আরও এগিয়ে নিতে চাই। সিকুয়েল বানানোর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছি। শিগিরই ‘কসাই টু’-এর ঘোষণা আসবে।

default-image

করোনার এই সময়ে ওটিটি চাঙা হচ্ছে। অন্যদিকে প্রেক্ষাগৃহের অবস্থা দিন দিন খারাপের দিকে...

এটি বলার মতো সময় এখনো হয়নি। সিনেমাপ্রেমীরা এখনো প্রেক্ষাগৃহে বসেই সিনেমা দেখতে বেশি ভালোবাসে। তবে এটাও ঠিক, করোনার কারণে অনেক প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ হয়েছে। সরকার অবশ্য একটা বড় অঙ্কের অর্থ বরাদ্দ করেছে দেশের প্রেক্ষাগৃহ সংস্কার করতে। করোনা পুরোপুরি কেটে গেলে আমরা বুঝতে পারব, কোন দিকে যাচ্ছি।

আলাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন