বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এর আগে কি কখনো ফোনে এই ধরনের কথা বলেছিলেন প্রতিমন্ত্রী? যেমন এরে নিয়ে আয়, ওরে নিয়ে আয়।

না না, এর আগে আমাকে এমন কথা জীবনেও বলে নাই। এরে নিয়ে আয়, ওরে নিয়ে আয়—এসব কথা কখনো বলেননি। তবে তাঁর সঙ্গে সর্বোচ্চ আমার ২-৩ বার কথা হইছে। এ রকম কথোপকথন জীবনে প্রথম। তা ছাড়া তিনি মন্ত্রী (প্রতিমন্ত্রী) মানুষ, ফোন দিলে তো আমি স্বাভাবিকভাবে ধরব এবং কথা বলব।

default-image

কিন্তু তিনি কেন বললেন, মাহিকে নিয়ে আয়?

এটা দুষ্টামি করে বলছে, নাকি কী কারণে বলছে, তা আমি জানি না।

এটা দুষ্টামি করে বলেছে কি না, এই বিষয় নিয়ে প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে পরে আর কোনো কথা হয়নি?

না না, আর এ বিষয়ে কোনো কথাই বলিনি। পরে লকডাউন শুরু হলে আমি বাসায় ঢুকে যাই। তবে বাংলা চলচ্চিত্রের উন্নয়ন শীর্ষক আলোচনা করতে একবার আমরা লাইভ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলাম। সেদিন আমিসহ মাহি, নিরব, সাইমন ও বাপ্পী ছিলাম। এরপর তাঁর সঙ্গে ফোনালাপ জীবনেও হয়নি। তিনি তো আমার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, তিনি ফোন দিলে ধরতেই পারি। তবে আমি প্রস্তুত ছিলাম না এমন পরিস্থিতির। তিনি ফোন দিয়েছেন, আমি ধরছি। আমি নরমালি কথা বলছি।

প্রতিমন্ত্রীর এমন কথা কি আপনাকে আতঙ্কিত করেছিল?

মাহির সঙ্গে যে তিনি এই ভাষায় কথা বলেছেন, সেটা তো আমি জানতামই না। আজই শুনলাম, কী ভাষায় তিনি কথা বলেছেন!

কিন্তু তিনি আপনাকে তো বলল, মাহিকে বিভিন্ন সংস্থার নাম দিয়ে ভয় দেখিয়েছে?

এগুলো তো আমারে বলল, দুষ্টামি করছে। তখন আমি বলছি, এসব কিছু লাগবে না। আমি দেখছি। পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার কথা ভেবেই বলেছি কিন্তু। আমি বিষয়টাকে স্বাভাবিকভাবে নিয়ে সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেছি শুধু। এরপর কিন্তু আমরা মিটিং করি, সেখানে যাইনি। মাহি বলল, বাসায় চলে যাব, আমিও বাসায় চলে গেছি।

default-image

এমন দুষ্টামি তিনি কি করতে পারেন?

কোনোভাবেই এ রকম দুষ্টামি তিনি করতে পারেন না। যা ঘটেছে, তা ঠিক হয়নি। একজন নারীকে সম্মান করা উচিত। মাহি আমার কলিগ, অবশ্যই তাঁকে সম্মানটা করা উচিত ছিল।

মন্ত্রীর সঙ্গে কথোপকথনের ধরন দেখে, অনেকে এ–ও বলছেন, তাঁর সঙ্গে আপনার সেই পর্যায়ের সম্পর্ক না থাকলে এমন কথা বলতে পারে না...

আমি ক্লিয়ার করে দিই। তিনি তথ্য প্রতিমন্ত্রী, আমাদের চলচ্চিত্রের সঙ্গে রিলেটেড। তাঁর সঙ্গে অনেকবারই দেখা হয়েছে ঠিকই। কথাও হয়েছে। শুধু আমার না, সব নায়ক-নায়িকার কাছে তাঁর ফোন নম্বর আছে। সবার সঙ্গে তাঁর ভালো রিলেশন। সবার সঙ্গে যা রিলেশন, আমার সঙ্গেও তাই রিলেশন। তিনি সবাইকে কিন্তু ফোন দেন, সেই সুবাদে আমাকেও কিন্তু ফোন দিয়েছেন।

আপনি বলছিলেন, সবার সঙ্গে তাঁর সুসম্পর্ক ছিল। সবাইকে তিনি ফোন দিতেন। আপনার সঙ্গে যে ধরনের ঘটনা ঘটেছে এমনটা কি অন্য কারও সঙ্গে ঘটেছে বলে জেনেছেন?

আসলে একজন প্রতিমন্ত্রী সম্পর্কে এই ধরনের ঘটনা তো প্রথম ঘটছে, যা সবার সামনে এসেছে। এর বাইরে আর কারও সঙ্গে এমন ঘটনা ঘটেছে কি না, তা আমার জানা নেই।

প্রতিমন্ত্রীর কথোপকথনের ভাষা ও ধরন নিয়ে আলোচনা হচ্ছে, এটা নিয়ে আপনার বক্তব্য কী?

এ রকম একটা ঘটনা অপ্রত্যাশিত, আমার জন্য বিব্রতকর। কারণ, আমাকে সমাজ ও পরিবার নিয়ে চলতে হয়। অনেকে আমাকে ফোন করে বিষয়টা খুলে বলার কথা বলছে, আমি বলব, খুলে বলার কিছু নেই। রেকর্ডে সবকিছু স্পষ্ট আছে। আমি আমার জায়গায় সব সময় নিট অ্যান্ড ক্লিন ছিলাম। আমরা কেউ এমনটা তাঁর কাছে আশা করিনি।

এত দিন আগের কথা হঠাৎ ফাঁস হলো কোথা থেকে। আপনার ফোনে কি রেকর্ডিংটা ছিল?

আমার মোবাইলে কখনো কোনো রেকর্ডিং অপশনই নেই। এই সিস্টেমটাই রাখিনি। কোথা থেকে এসেছে আমার কোনো আইডিয়া নেই। আমি কিন্তু বলিনি, ভাই আসেন, মজা করি, মাস্তি করি। আমি শুধু যেভাবে কাটিয়ে দেওয়া যায়, সেই চেষ্টা করেছি।

অভিযোগের তির তো আপনার দিকেও আসছে?

সাধারণ মানুষ তো আমার সঙ্গে আর মেশে না তাই বুঝবে না। ইন্ডাস্ট্রির ১০০ জন মানুষের মধ্যে ৯৯ জনই আমার ব্যাপারে সার্টিফিকেট দিতে পারবে, সবাই জানে আমি কী রকম। আমি কীভাবে কাজ করি। একটা ফোনালাপ, এই ফোনালাম ২-৩ বার শুনলে কিন্তু বোঝা যাবে আমি মন্ত্রীকে সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেছি। তিনি কী বলছেন, আর আমি কী বলছি, রেকর্ডিংয়ে তা স্পষ্ট। ওসব চিন্তা করলে আমার দিকে তির ছোড়ার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। আমি আমার জায়গা থেকে ক্লিয়ার ছিলাম।

আচ্ছা, তখন তো মাহিকে কী বলেছে শোনেননি কিন্তু আজ যখন রেকর্ডিং শুনলেন, সহকর্মীর প্রতি মন্ত্রীর এমন কথাবার্তায় কেমন লেগেছে...

আমি বিব্রত। আমার খুব খারাপ লাগছে। একজন সহকর্মীকে, নারীকে একজন মন্ত্রীর এভাবে বলাটা দুঃখজনক। এই ধরনের কথা হবে বুঝতে পারলে, আমি তো ফোনটাই দিতাম না। একজন মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর কাছে আমাদের অনেক চাওয়া। আমাদের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির অনেক কাজে তাঁদের দরকার হয়, কিন্তু এ ধরনের ভাষা তো আশা করি না।

আলাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন