শুনলাম ‘পাপ পূণ্য’, ‘দামাল’ কিংবা নাটকের কান্নার দৃশ্যের শুটিং এর আগে আপনি চুপ থাকতেন। কেন?

এটা সত্য কথা। আপনি জানলেন কীভাবে? আমার ক্ষেত্রে এমনও হয় কোনো গল্প পছন্দ না হলে আমি কাজ করি না। অনেক সময় গল্পের চরিত্রের ব্যক্তিত্ব সঙ্গে নিজেকে খাপছাড়া মনে হয়। তখন আমি সেই কাজ ছেড়ে দিই। যেটা আমার কাছে ভালো লাগে, সেটা শতভাগ দিয়ে করতে চাই। এই জন্য খুব বেশি কাজ করি না। দামাল ২৬ মার্চের গণহত্যার মতো ন্যক্কারজনক বিষয় ছিল, ‘পাপ পূণ্য’-এ ভালোবাসার মানুষকে পাওয়ার তুমুল আকাঙ্ক্ষা ছিল। সিনেমায় কান্নার দৃশ্যগুলোর সময় সুমির মধ্যে চরিত্রকে হাজির করতাম। ডিরেক্টর লাইট ক্যামেরা অ্যাকশন বলতেই কান্না চলে আসত।

অর্ধযুগের ক্যারিয়ারে প্রাপ্তি কী?

আমি খুবই সৌভাগ্যবান অভিনেত্রী। ছোট একটা মেয়ে হিসেবে দুই সিনেমা, নাটক, বিজ্ঞাপন দিয়ে পরিচিতি পেয়েছি। আবুল হায়াত, সালাহউদ্দিন লাভলু, গিয়াস উদ্দিন সেলিম, রায়হান রাফিসহ অনেক গুণী পরিচালক ও চঞ্চল চৌধুরী, আফসানা মিমি আপাসহ অনেক অভিনেতার সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়ে আমি কৃতজ্ঞ।

সিনেমায় কীভাবে নাম লেখালেন?

তখন এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছিলাম। এর মাঝেই একদিন শুনলাম গিয়াস উদ্দিন সেলিম ভাই নতুন সিনেমা বানাবেন। সেখানে অডিশন দিতে যাই। ৪-৫ দিন ধরে অডিশন দিয়ে হঠাৎ একদিন গিয়াস উদ্দিন সেলিম বললেন, আসো চুক্তি করি। আমি হতভম্ব। প্রত্যাশা ছাড়াই সিনেমার নায়িকা (হা হা)। আমার বিপরীতে সিয়াম। আর আমি প্রত্যাশা করে অডিশনে আসিনি। মজার ব্যাপার হচ্ছে ‘পাপ পূণ্য’ সিনেমার শুটিংয়ের সময় গিয়াস উদ্দিন সেলিমের কাছ থেকে প্রতিদিন শুনতে হতো, ভুল করলেই তোমাকে চিঠি দিয়ে বিদায় জানাব। অবশেষ টিকে গেছি। ভবিষ্যতেও প্রত্যাশা ছাড়াই কাজ করে যেতে চাই। কাজ দিয়ে দর্শকদের ঠকাতে চাই না।

ঠকানো বলতে কী বোঝাচ্ছেন?

দেখুন, আমি যখন ‘সোনার পাখি রুপার পাখি’ নাটকে অভিনয় করি। তখন আমার বিজলি চরিত্রটি অনেক আলোচনায় ছিল। তারপর কিন্তু আমার আরও বেশি নাটকে কাজ করার কথা ছিল। কিন্তু আমি করিনি। দেখা যেত একই রকমের গল্পে নিয়মিত কাজ করছি। এটা আমার কাছে ভালো লাগেনি। এটা দর্শকদের ঠকানো। ভালো চিত্রনাট্য পাইনি। তখন একের পর এক নাটক করে গেলে গালি খেতাম। শুধু শুধু গালি খাব কেন, আপনিই বলেন?

আপনি তো সেরা নাচিয়ে-তে ১০-এর মধ্যে জায়গা করে নিয়েছিলেন, নাচ কতটা পছন্দ?

আমি আসলে নাচের মানুষ। পরে একজন অভিনেতা। এখন দুটো মিলিয়েই আমি। নাচ-গানের ছবি এখনো করা হয়নি। সেসব ছবিতে হয়তো নিজেকে আরও বেশি প্রমাণ করার সুযোগ পাব। তবে কোনো ছবিকে আলাদা করতে চাই না। আমার কাছে সব ছবিই বাণিজ্যিক।

অভিনয়ে পরিবারের সায় আছে? 

পরিবার অভিনয় নিয়ে আমাকে সব সময়ই সহযোগিতা করেছে। আমার মা ও বোন সবচেয়ে বেশি সহযোগিতা করেন। আমার কাছে মনে, অভিনয় ক্যারিয়ারে এখন সম্ভাবনার জায়গা তৈরি হয়েছে। ভবিষ্যৎও রয়েছে। যোগ্যতার মূল্যায়ন রয়েছে। 

পড়াশোনা, প্রেম-বিয়ে?

আমি এখনো অনেক ছোট। অনার্স সেকেন্ড ইয়ারে পড়ছি। প্রেম করার সময় কই ভাই? চিত্রনাট্যের মতো প্রেম করার জন্য ভালো মনের মানুষ কম (হাসি)। এখন আসলে ক্যারিয়ার নিয়েই ভাবছি।