কারও মতে জন্মদিন মানে জীবন থেকে একটি বছর কমে যাওয়া। কেউ বলেন মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাওয়া। এই দিনকে আপনি কীভাবে দেখেন?

শুধু এই দিনে কেন, প্রতিদিনই তো মৃত্যুর কথা ভাবতে হবে। মৃত্যুকে ভয় পেলে তো চলবে না। জন্মেছি যখন, একদিন তো মরতেই হবে। তাই মৃত্যুকে জয় করতেই মৃত্যুর ভাবনা ভাবতে হবে। মৃত্যুর আগপর্যন্ত যতক্ষণই বেঁচে আছি, ততক্ষণ কাজ করব। তা ছাড়া আমি স্বপ্ন দেখতে পছন্দ করি। তাই জেগে জেগে স্বপ্ন লালন করি, যাতে স্বপ্নগুলো মরে না যায়।

আপনি যখন চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন, তখন ফেসবুক ছিল না। বিশেষ দিনে শুভেচ্ছা জানাতে ভক্তরা চিঠি লিখত, ফুল আর চকলেট পাঠাতেন। এখন ফেসবুকে অনেক লেখালেখি হয়। কেমন লাগে?

পরিবর্তন সবাইকে মেনে নিতে হবে। আমরা এখন নতুন অনেক কিছুর সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে উঠেছি। তার মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম অন্যতম। ফেসবুকে বিশেষ এই দিনে নানা কিছু লেখা হয়। এমন সব স্মৃতি উসকে দেয়, যা অকল্পনীয়। যখন ফেসবুকে নানা ধরনের লেখা ও পুরোনো ছবির স্টিল, ক্লিপিংস দেখি, নস্টালজিক হই। আবেগতাড়িত করে। ভাবতে থাকি, মানুষ কত ব্যস্ত, তারপরও নিজে থেকে মনে করে আমাকে নিয়ে লিখছে, এ তো পরম প্রাপ্তি। অনেক লেখা আছে হৃদয় নাড়িয়ে যায়। পত্রপত্রিকা ও টেলিভিশনে এই দিনে লেখা হয় এবং বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করে। অভিনয়শিল্পী হিসেবে এসব তো আশীর্বাদ। একজীবনে কয়জনের ভাগ্যে এমনটা জোটে।

আপনি ও ওমর সানী দুজনই আপাদমস্তক চলচ্চিত্রের মানুষ। আপনাদের সন্তান ফারদীনকেও নির্মাণ ও প্রযোজনায় দেখা গেল। মেয়ে ফাইজাকে নিয়ে কী ভাবনা?

ফারদীন কিছু কাজ করেছে। আমরা তাকে উৎসাহ দিয়েছি। পরে আমরা দুজন বলেছি, প্রতিষ্ঠিতও হতে হবে। আমাদের দুজনের যা কিছু, সবই তো ওদের দুই ভাইবোনের। ফারদীন সিনেমা নিয়ে পড়াশোনা করেছে, তাতে আমরা খুশি। এখন পারিবারিক ব্যবসা দেখাশোনা করছে। অভিনয় না করলেও মা-বাবার অভিনয়জীবনের যা কিছু আছে, সবকিছু ফারদীনকেই ধরে রাখতে হবে। আর মেয়ে ফাইজার ইচ্ছা পাইলট হবে। আমরা কিছু বলছি না। কারণ, তার চাওয়া আমাদের কাছে বড়। ফাইজা সিনেমার আশপাশেও নেই, ব্যবসাও পছন্দ করে না।

১১ নভেম্বর নতুন চলচ্চিত্র ‘দেশান্তর’ মুক্তি পাচ্ছে। ছবিটি নিয়ে দর্শকদের আপনার কিছু বলার আছে?

এই ছবির গল্পের ভাবনাটা খুব সুন্দর। চরিত্রও বেশ মনে ধরেছে। এ ধরনের গল্পে কাজ করার মধ্যে চ্যালেঞ্জ যেমন আছে, আনন্দও আছে। আমার বিশ্বাস, আমরা শুটিংও ঠিকঠাক করেছি। দর্শকেরা প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে ছবিটি দেখলে নিশ্চয়ই তাঁদের ভালো লাগবে। এটা দেশপ্রেমের গল্প। একটা কথা কি, সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে আমাদের সিনেমার পরিবর্তন হচ্ছে। নানা ধরনের গল্পের ছবি হচ্ছে। এই সময়টাতে অভিনয়ে ফেরার জন্য যে ধরনের গল্প ও চরিত্র খুঁজছিলাম, দেশান্তর–এ তা পেয়েছি।

চলচ্চিত্রে সফলতা যেমন পেয়েছেন, তেমনি ব্যর্থতাও ছিল নিশ্চয়। দুটি বিষয়কে কীভাবে দেখেন?

একজন ‘মৌসুমী’ হয়ে মানুষের মনে জায়গা করতে পেরেছি। সবাই আমাকে ভালোবাসেন—এটা তো অনেক বড় অর্জন। পেছন ফিরে তাকালে দেখি, আমি যা চেয়েছি, তা-ই পেয়েছি। অনেকে ক্ষেত্রে বাড়তি অনেক কিছুও পেয়েছি। তবে জীবনে সফলতা যেমন আছে, তেমনি ব্যর্থতাও আছে। তবে ব্যর্থতার সেসব বলতে চাই না। আমি মনে করি, এসব বললে সৃষ্টিকর্তা নারাজ হন। কারণ, আমি বিশ্বাস করি, যা পাইনি, তা আমার জন্য ছিল না।