নেতিবাচক ও ইতিবাচক, কোন চরিত্র করে প্রশংসা পান বেশি?

নেতিবাচক চরিত্রে অভিনয়ে বৈচিত্র্য বেশি থাকে। ছোটবেলায় টু-লেট নামে একটি নাটকেও নেতিবাচক চরিত্রে অভিনয় করি। আমার কাছে মনে হয়, নায়িকারা তো খালি কান্নাকাটি করে ভিলেনদের চাপে, তাই অভিনয়ের সুযোগ কম থাকে। হলিউড, বলিউড, এমনকি বাংলা সিনেমায় সাধারণত দেখি, ভিলেন হয় ছেলেরা। যখন মেয়েদের ভিলেন হওয়ার সুযোগ থাকে, আমি হই।

default-image

খলচরিত্রে অভিনয়ে কারও দ্বারা কি অনুপ্রাণিত?

আমার আসলে অভিনয় করতে ভালো লাগে। যেখানে অভিনয়ের সুযোগ বেশি, সেটা করতে আরও বেশি ভালো লাগে। শত্রু শত্রু খেলা ছবিতেও আমি ভিলেন। মান্না ভাই, মৌসুমী আপু, রাজ্জাক আঙ্কেল—সবাই আমার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ। এই সুযোগ তো নায়িকা হলে হতো না। নায়িকা হলে হয়তো নায়ককে বলতে হতো, বাঁচাওওওও। এখানে আমি কাউকে বলিনি, বাঁচাও। নিজেই সবাইকে মাইরা ফেলছি! কাউকে বাঁচাও বলতে হয় না। আমার অত্যাচারে অন্যরা বাঁচাও বলে (হাসি)। কিছুদিন আগে মুক্তি পাওয়া ওয়েব সিরিজ কাইজার-এ তিনটা লুক দিয়েছি, সবাই পছন্দ করেছে।

default-image

খলচরিত্রে আপনার পছন্দের শিল্পী কারা?

আমার জন্মের পর থেকে যত সিনেমা দেখেছি, নাটক দেখেছি, যত পারফরম্যান্স দেখেছি, যত অ্যানিমেটেড ফিল্ম দেখেছি, গান শুনেছি, লিরিকস পড়েছি—সবকিছু কিন্তু আমার ভেতরে একটু একটু করে জমা হয়েছে। তখন আমি হয়তো জানতাম না, বড় হয়ে অভিনেত্রী হব। মনের অজান্তে অনেকের অনেক ধরনের অভিনয় আমার মধ্যে জমা হয়েছে। সেখান থেকে বের করে আমি এখন অভিনয় করি। এ মুহূর্তে আমার যতজন ভিলেনের কথা মনে পড়ছে, তাঁরা হচ্ছেন অনুপম খের, নাসিরউদ্দিন শাহ, আমজাদ খান, ড্যানি ডেনজংপা, অমরেশ পুরী, হিথ লেজার, হুমায়ুন ফরীদি। কেন জানি বাস্তব জীবনের মানুষের অভিনয় থেকে অ্যানিমেটেড মুভির অভিনয় ভালো লাগে। অনেক ডিটেইল থাকে বলে মনে হয়। দ্য লাস্ট অব দ্য মোহিকানস ছবির ভিলেনকেও ভালো লেগেছে। মিশা সওদাগরের অভিনয়ও ভালো লাগে। সব ধরনের অভিনয় আসলে প্রয়োজন হয় জীবনে। কঞ্জুস নাটকে লিয়াকত আলী লাকীর পারফরম্যান্স দেখেছি। আমার জীবনে সবই জমা হয়েছে।

নারী খলচরিত্রের কাউকে ভালো লাগেনি?

ফুল বানে অঙ্গারে ছবিতে পুলিশের চরিত্রে রেখাকে ভালো লেগেছিল। ছবিতে তিনি ঠিক ভিলেন হননি, তাঁর ওপর যারা অত্যাচার করেছিল, তাদের বদলা নিয়েছিলেন। শত্রু শত্রু খেলা ছবিতে আমি যখন পুলিশ হয়েছি, তখন মনে হচ্ছিল, আমাকে রেখার মতো লাগছে। আমি শ্রীদেবীকেও ভিলেন চরিত্রে অভিনয় করতে দেখেছি। আমি গুপ্ততে কাজল আর ফুল বানে অঙ্গারেতে রেখার পারফরম্যান্স মিলিয়ে শত্রু শত্রু খেলা ছবিতে অভিনয় করেছি।

‘কাইজার’-এর পর নতুন কাজের প্রস্তাব কেমন পাচ্ছেন?

কাইজার টু করব, এটা ফাইনাল। ওয়েব সিরিজে অভিনয়ের প্রস্তাব পাচ্ছি; কিন্তু ও রকমভাবে নয়। মাঝখানে তো আবার এক মাস রিয়েলিটি শো ‘ম্যাজিক বাউলিয়ানা’র উপস্থাপনা নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম।

default-image

রিয়েলিটি শো তো আগেও একবার করেছেন।

প্রথম ‘সুপার হিরো সুপার হিরোইন’ উপস্থাপনা করেছিলাম। কারণ, সেটি ছিল চলচ্চিত্র নিয়ে। আর তখন আমি চিত্রনায়িকা ছিলাম। আর এবারেরটা গানের। কারণ, আমি সংগীতের মানুষও। তাই দ্বিতীয়বারের মতো উপস্থাপনা করছি।

default-image

গানবিষয়ক অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করে কেমন লাগছে?

আমার কাছে বেশি ইন্টারেস্টিং লেগেছে। আমার ভাই সন্ধি আর আমি ছোটবেলায় শাস্ত্রীয় সংগীত শিখেছি। তারপর ২০০৪ সাল থেকে ৯ বছর মহাকাল নামে একটি ব্যান্ড করেছি। রক মিউজিক করেছি। যেহেতু আমরা শহরে বেড়ে উঠেছি, তাই মাটির সঙ্গে আমাদের সংযোগ কম ছিল। মাটির গান যে শিখিনি, তা নয়; কারণ, আমার বাসায় গানের স্কুল ছিল, বাবা সেই স্কুল চালাতেন। কিন্তু এত এত বাউল! আমি আর সন্ধি পাশে দাঁড়িয়ে তাদের গান শুনছি। জীবনযাপন দেখছি। মনে করছি, আমাদের দুজনের সংগীতের একটা ভ্রমণ হচ্ছে। এটা ভিন্নধর্মী একটা ফিলোসফিক্যাল জার্নি।

আলাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন