নেই আলোর ঝলকানি, ক্যামেরার ফ্ল্যাশে ক্লিক ক্লিক, নেই হইচই বা উচ্ছ্বাসের বাড়াবাড়ি। সামাজিক দূরত্ব রেখে বসেছেন সবাই। তাই পুরস্কার ঘোষণার পর নেই আপনজনকে জড়িয়ে ধরার উচ্ছ্বাস। জাতপাত, গায়ের রং নিয়ে যে আর মাথাব্যথা নেই অস্কারের, মনোনয়নের পর সেই প্রমাণ পাওয়া গেছে অস্কারের ওয়াচ পার্টি আর মূল আয়োজনেও। মনোনয়ন আর বিজয়ী—সবদিক থেকেই সর্বকালের সবচেয়ে বৈচিত্র্যময় মনোনয়নের তালিকা এটি।

default-image

একনজরে দেখে নেওয়া যাক চলচ্চিত্রের সবচেয়ে বড় রাতে কারা হাসলেন শেষ হাসি। সেরা ছবি হয়েছে ‘নোম্যাডল্যান্ড’, সেরা পরিচালক ক্লোয়ি ঝাও (নোম্যাডল্যান্ড), সেরা অভিনেতা অ্যান্থনি হপকিন্স (দ্য ফাদার) ও সেরা অভিনেত্রী ফ্রান্সিস ম্যাকডোরম্যান্ড (নোম্যাডল্যান্ড)।

default-image

সেরা সিনেমা: নোম্যাডল্যান্ড
সেরা পরিচালক: ক্লোয়ি ঝাও (নোম্যাডল্যান্ড)
সেরা অভিনেতা: অ্যান্থনি হপকিন্স (দ্য ফাদার)
সেরা অভিনেত্রী: ফ্রান্সিস ম্যাকডোরম্যান্ড (নোম্যাডল্যান্ড)
সেরা সহ-অভিনেতা: ড্যানিয়েল কালুইয়া (জুডাস অ্যান্ড দ্য ব্ল্যাক মোসিয়েহ)
সেরা সহ-অভিনেত্রী: ইয়া-জাং উন (মিনারি)
সেরা মৌলিক গান: ফাইট ফর ইউ (জুডাস অ্যান্ড দ্য ব্ল্যাক মোসিয়েহ)
সেরা এনিমেটেড সিনেমা: সোল

default-image

সেরা রূপসজ্জা ও কেশসজ্জা: মা রেইনি’স ব্ল্যাক বটম
ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট: টেনেট
সিনেমাটোগ্রাফি: মাঙ্ক
সম্পাদনা: সাউন্ড অব মেটাল
প্রোডাকশন ডিজাইন: মাঙ্ক
শব্দ: সাউন্ড অব মেটাল
সেরা আন্তর্জাতিক সিনেমা: অ্যানাদার রাউন্ড (ডেনমার্ক)
সেরা প্রামাণ্যচিত্র: কোলেট
প্রামাণ্যচিত্র ফিচার: মাই অক্টোপাস টিচার

default-image

লাইভ অ্যাকশন স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র: টু ডিসট্যান্ট স্ট্রেঞ্জার্স
অ্যানিমেটেড স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র: ইফ এনিথিং হ্যাপেনস, আই লাভ ইউ
সেরা মৌলিক চিত্রনাট্য: প্রমিজিং ইয়াং ওম্যান
সেরা অ্যাডাপ্টেড চিত্রনাট্য: দ্য ট্রায়াল অব শিকাগো সেভেন
অরিজিনাল স্কোর: সোল
কস্টিউম ডিজাইন: মা রেইনি’স ব্ল্যাক বটম

বিজ্ঞাপন
default-image

বিশ্বে মহামারি পরিস্থিতি শোচনীয়। যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থা সবচেয়ে বেশি খারাপ। তবু আজ যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেস উৎসবমুখর, সাজ সাজ। বাংলাদেশ সময় ভোর ছয়টায় শুরু হয়ে নয়টা পর্যন্ত চলল এ বছর চলচ্চিত্র দুনিয়ার সবচেয়ে বড় আসর ৯৩তম অস্কার। গোল্ডেন গ্লোব, বাফটার মতো অস্কারও এবার আয়োজিত হলো ছোট পরিসরে। মার্কিন মুলুকেই দুটি মিলনায়তনে ভিন্ন আয়োজন ছিল অনুষ্ঠানটির।

default-image

ঐতিহাসিক ডলবি থিয়েটার তো আছেই, এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে লস অ্যাঞ্জেলেসের ইউনিয়ন স্টেশন। তা ছাড়া যুক্তরাজ্যের লন্ডন আর ফ্রান্সের প্যারিসেও রাখা হয়েছিল দুটি স্টেশন। সেখান থেকেও যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকতে না পারা মনোনীত শিল্পী আর কলাকুশলীরা যোগ দিয়েছেন। মনোনয়নে বারবার উচ্চারিত হয়েছিল ‘ম্যাঙ্ক’, ‘দ্য ফাদার’, ‘নোম্যাডল্যান্ড’, ‘মিনারি’, ‘ব্ল্যাক মোসিয়েহ’, ‘সাউন্ড অব মেটাল’-এর মতো ছবিগুলোর নাম। একমাত্র ভারতীয় ছবি হিসেবে (যৌথভাবে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে) অস্কারের দৌড়ে শামিল হয়েছিল আদর্শ গৌরব, প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও রাজকুমার রাও অভিনীত ‘দ্য হোয়াইট টাইগার’। কিন্তু পুরষ্কার জয় করতে পারেনি ছবিটি।

default-image

এবারের অস্কার অনেক দিক থেকেই আলাদা। হবে কি হবে না সেই দোলাচলেও যে আসরটি হলো, এটা বিশ্ব চলচ্চিত্রকে দিচ্ছে ইতিবাচক বার্তা আর শক্তি। অস্কার আয়োজনের হলরুমে যাঁদের বসে থাকতে দেখছেন, একবার নয়, দুবার নয়, তিন-তিনবার করোনা পরীক্ষা করিয়েই তাঁরা এ আয়োজনে অংশ নিয়েছেন। তাপমাত্রা পরীক্ষা করে ঢুকতে তো হয়েছেই। যতক্ষণ অনুষ্ঠান সরাসরি দেখানো হচ্ছে না, সেই পর্যন্ত মাস্ক ছিল বাধ্যতামূলক। পুরো বিষয়টা নজরদারি করার জন্য ছিল একটা সুরক্ষা দল।

default-image

আয়োজক, মনোনীত সদস্য ও তাঁদের নিকটাত্মীয় ছাড়া মাত্র ১৭০ জন ভাগ্যবান দর্শক সরাসরি উপভোগ করেছেন এই আয়োজন। আর অস্কার তো হলো, এবার যাঁদের হাতে পুরস্কার উঠেছে আর যাঁদের হাতে ওঠেনি, তাঁদের সবাইকে থাকতে হবে বাধ্যতামূলক ১০ দিনের কোয়ারেন্টিনে। অস্কারের মূল অনুষ্ঠানের আগে ও পরে রেড কার্পেটের ভিড় খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। কিন্তু এবার করোনা পরিস্থিতিতে তা হয়নি। চুপিসারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে একাডেমি কর্তৃপক্ষের নিজস্ব আলোকচিত্রীদের নিয়েই সেটি সম্পন্ন হয়েছে।

হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন