এ বছর ‘নোম্যাডল্যান্ড’ প্রায় নিয়ে ফেলেছে গত বছরের ‘প্যারাসাইট’–এর জায়গা। চীনা পরিচালক ক্লোয়ি ঝাওয়ের এই ছবি উত্তর কোরিয়ান পরিচালক বং জুন হোর অস্কারজয়ী ছবির আলোচনা, একের পর এক বিশ্বের বড় বড় চলচ্চিত্র উৎসব জয়, সমালোচকদের ঝুড়িভরা প্রশংসা—প্রায় সবদিকে ছুঁয়ে ফেলেছে।

default-image

সিনেমার গল্প ২০১১ সালের এক যাযাবরকে ঘরে। হঠাৎ করেই জিপসাম খনিতে কাজ হারায় ফার্ন। কী করবে, ভেবে না পেয়ে প্রতবেশীদের গুড বাই বলে সে একটা ক্যারাভান নিয়ে বেরিয়ে পড়ে অজানার উদ্দেশে। গাড়ি থামিয়ে সে প্রাকৃতিক কর্ম সারে। রাস্তায় কাপড় শুকায়। কিছুকাল থেমে একটা চাকরিও করে। আবার এগোয়। যাত্রার সঙ্গে সঙ্গে স্পষ্ট হয় ভুলতে বসা উত্তর আমেরিকার সিয়েরা নেভাডার মরুভূমি অঞ্চলগুলোর রুক্ষতা আর জীবনসংগ্রামের টুকরো টুকরো গল্প। প্রামাণ্যচিত্রের আদলে বানানো এই ফিচার সিনেমায় রাস্তায় দেখা হওয়া চরিত্রদের অধিকাংশই বাস্তব। দেখা গেছে জনপ্রিয় ভিডিও ব্লগার, পরিচিত মুখ, উত্তর আমেরিকার ‘যাযাবরদের গুরু’ বব ওয়েলসকে। ভেনিসের পর টরন্টো চলচ্চিত্র উৎসব মাতিয়ে গোল্ডেন গ্লোবে সেরার মুকুট জয় করে এই ছবি। এবার বাফটার মঞ্চেও ‘নোম্যাডল্যান্ড’–এর জয়জয়কার। সেরা সিনেমা, সেরা পরিচালক, সেরা অভিনেত্রী, সেরা চিত্রগ্রহণ—চারটি গুরুত্বপূর্ণ পুরস্কার লেখা হয়েছে এই সিনেমার নামে। এদিকে ৯৩তম অস্কারেও সেরা সিনেমা, সেরা অভিনেত্রী, সেরা পরিচালকসহ ‘নোম্যাডল্যান্ড’–এর কপালে জুটেছে ছয়-ছয়টি মনোনয়ন। ২৫ এপ্রিল রোববার যদি সেরা সিনেমা বা সেরা পরিচালকের অস্কারে লেখা থাকে ‘নোম্যাডল্যান্ড’–এর নাম, তাহলে বিশ্ব চলচ্চিত্রের খোঁজ রাখেন, এমন কেউই অবাক হবেন না।

default-image

ইংল্যান্ডের লন্ডনে রয়্যাল আলবার্ট হল। প্রতিবছরের মতো এবার নেই লালগালিচায় বিশ্বসেরাদের ঝলকানি আর হুল্লোড়। হাতে গোনা তারকাদের উপস্থিতি আর বাকিটা অনলাইনের ওপর ভরসা করেই মহামারিকালে অনুষ্ঠিত হলো ব্রিটিশ একাডেমি অব ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন আর্টস অ্যাওয়ার্ডসের (বাফটা) ৭৪তম আসর।

default-image
বিজ্ঞাপন

করোনার ভয়ে বাফটা নির্ধারিত সময় থেকে দুই মাস পিছিয়েছে, এক দিনের অনুষ্ঠান হয়েছে দুই ভাগে, দুই দিনে। যাঁরা মনোনয়ন পেয়েছেন, তাঁদের আর বাফটার লালগালিচায় পা রাখা হলো না। হলো না মঞ্চে উঠে পুরস্কার নেওয়া। অনলাইনেই সারতে হয়েছে সবটা।

তবে কারা ছিলেন এবার রয়্যাল আলবার্ট হলে? বিজয়ীদের নাম ঘোষণার জন্য লালগালিচায় পা মাড়িয়েছেন কয়েকজন তারকা। ছিলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া-নিক জোনাস দম্পতি, টম হিডেলস্টন, হিউ গ্র্যান্ট, জেমস ম্যাকাভয়, রিচার্ড ই গ্র্যান্ট, অ্যান্ড্রা ডে, সিনথিয়া এরিভো, ফেলিসিটি জোনস। যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসের একটি স্টুডিও থেকে অনলাইনে পুরস্কার প্রদানের জন্য যুক্ত হন রেনে জেলওয়েগার ও আনা কেন্ড্রিক।

default-image

‘দ্য ফাদার’ ছবিতে একজন আলঝেইমার রোগীর চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয় করে সেরা অভিনেতার বাফটা জিতে নেন বর্ষীয়ান অভিনেতা অ্যান্থনি হপকিন্স। এ নিয়ে চারটা বাফটা পুরস্কার ঘরে তুললেন অস্কারবিজয়ী এই হলিউড তারকা। একই ছবির জন্য চিত্রনাট্য বিভাগে সেরার পুরস্কার জিতে নিয়েছেন ক্রিস্টোফার হ্যাম্পটন ও ফ্লোরিয়ান জেলার।

default-image

একনজরে ২০২১-এর ‘বাফটা’র মূল বিভাগের বিজয়ীরা:
সেরা ছবি: নোম্যাডল্যান্ড
সেরা অভিনেতা: স্যার অ্যান্থনি হপকিন্স (দ্য ফাদার)
সেরা পরিচালক: ক্লোয়ি ঝাও (নোম্যাডল্যান্ড)
সেরা অভিনেত্রী: ফ্রান্সেস ম্যাকডোরম্যান্ড (নোম্যাডল্যান্ড)
সেরা সহ-অভিনেত্রী: ইয়া জুন উন (মিনারি)
সেরা সহ-অভিনেতা: ড্যানিয়েল কালোয়া (জুডাস অ্যান্ড দ্য ব্ল্যাক মেসায়া)
সেরা সিনেমাটোগ্রাফি: নোম্যাডল্যান্ড
সেরা উদীয়মান তারকা: বাকি বাকরে (রকস)

default-image

অসামান্য অভিষেক (লেখক, পরিচালক অথবা প্রযোজক): রেমি উইকস (‘হিজ হাউস’ সিনেমার পরিচালক ও চিত্রনাট্যকার)
সেরা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র: অ্যানাদার রাউন্ড (ডেনমার্ক)
সেরা প্রামাণ্যচিত্র: মাই অক্টোপাস টিচার
সেরা অ্যানিমেটেড সিনেমা: সোল
সেরা মৌলিক চিত্রনাট্য: এমারেল্ড ফেনল (প্রমিজিং ইয়াং ওম্যান)
সেরা অ্যাডাপটেড চিত্রনাট্য: ক্রিস্টোফার হ্যাম্পটন ও ফ্লোরিয়ান জেলার (দ্য ফাদার)
সেরা আবহ সংগীত: জন বাটিস্ট, ট্রেন্ট রেজনা ও অ্যাটিকাস রস (সোল)
সেরা চিত্রগ্রহণ: জশুয়া জেমস রিচার্ডস (নোম্যাডল্যান্ড)

default-image
বিজ্ঞাপন
হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন