অ্যানিস্টন বলেন, ‘আমার স্বামী (ব্র্যাড পিট) আমাকে ছেড়ে যায়, কারণ আমাদের কোনো সন্তান ছিল না। মা হতে পারিনি, তাকে কোনো সন্তান উপহার দিতে পারিনি, এটাই বিচ্ছেদের কারণ।’

অনেক গণমাধ্যমে খবর হয়, ক্যারিয়ারের স্বার্থেই সন্তান নেননি তিনি। এ জন্য তাঁকে ‘স্বার্থপর’ অপবাদও শুনতে হয়। তবে এটি পুরোপুরি ভুয়া খবর বলে জানান অ্যানিস্টন। অভিনেত্রী প্রথমবারের মতো প্রকাশ করেন, অনেক চেষ্টা করেও মা হতে পারেননি তিনি।

অ্যানিস্টন বলেন, ‘আমি মা হতে অনেক চেষ্টা করেছি, কিন্তু পারিনি। আইভিএফের মাধ্যমে গর্ভবতী হওয়ার চেষ্টা, চীনা চা পান থেকে শুরু করে মা হওয়ার জন্য হেন জিনিস নেই, করিনি।’

তবে অভিনেত্রীর অবশ্য এসব নিয়ে কোনো আক্ষেপ নেই। অ্যানিস্টন বলেন, ‘সত্যি বলতে, এখন খুব স্বস্তিতে আছি। মা হতে পারব কি না, এসব নিয়ে চিন্তা নেই।’
ব্র্যাড পিটের পর ২০১৫ সালে জাস্টিন থেরক্সকে বিয়ে করেন অ্যানিস্টন। তবে দুই বছর পর সে সংসারও ভেঙে যায়।

সর্বশেষ জেনিফার বলেন, ‘আমি শুধু নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে ভাবতাম এবং আমি সফলও। কিন্তু অনেক চেষ্টা করেও মা হতে পারিনি। তবে এ নিয়ে এখন আর কোনো আক্ষেপ নেই।’ এসব নিয়ে তিনি এখন আর ভাবেন না।