গত ৫ জুন প্রাতর্ভ্রমণের সময় সালমানের বাবা তথা বলিউডের খ্যাতনামা লেখক সেলিম খান এক উড়োচিঠি পেয়েছিলেন। এই চিঠিতে সালমান ও তাঁকে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়েছিল। এই চিঠি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেলিম খান বান্দ্রা পুলিশ স্টেশনে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এফআইআর করেছিলেন। তার পর মুম্বাই পুলিশের পক্ষ থেকে সালমান আর তাঁর পরিবারের সুরক্ষাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছিল। কিন্তু মহারাষ্ট্র সরকার কোনোরকম ঝুঁকি নিতে চাইছে না। তাই এই বলিউড সুপারস্টারকে এখন থেকে ‘ওয়াই প্লাস’ সিকিউরিটি দেওয়া হচ্ছে। এখন থেকে সালমানের সঙ্গে সব সময় অস্ত্রধারী চারজন কমান্ডো থাকবেন। একই সঙ্গে অক্ষয় কুমার আর অনুপম খের এক্স ক্যাটাগরির সুরক্ষা পেয়েছেন। এই দুই তারকার সঙ্গে সব সময় তিনজন নিরাপত্তারক্ষী তাঁদের সুরক্ষার জন্য মোতায়েন থাকেন।

পুলিশি তদন্তে উঠে এসেছিল যে সালমানকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছিল গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোইর দল। এই চিঠিতে লেখা ছিল যে সালমানের হাল সিধু মুসেওয়ালার মতো করা হবে। এর মাত্র কয়েক দিন আগে পাঞ্জাবি গায়ক সিধু মুসেওয়ালাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল। এই পাঞ্জাবি গায়কের হত্যার পেছনে লরেন্স বিষ্ণোইর হাত ছিল বলে পুলিশি তদন্তে ধরা পড়েছিল। সালমান প্রাণনাশের হুমকির চিঠি পাওয়ার পর নিজের কাছে বন্দুক রাখার জন্য লাইসেন্সের আবেদন করেছিলেন। তাঁর আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছিল। এ ছাড়া এই বলিউড তারকা নিজের সুরক্ষার জন্য বুলেটপ্রুফ ল্যান্ড ক্রুজার গাড়ি নিয়েছিলেন।

সালমান এখন ব্যস্ত তাঁর আগামী ছবি ‘কিসি কে ভাই কিসি কে জান’ ছবির শুটিংয়ে। কিছুদিন আগে ডেঙ্গু থেকে সুস্থ হয়ে কাজে ফিরেছেন তিনি। ‘কিসি কে ভাই কিসি কে জান’ ছবিতে তাঁর সঙ্গে আছেন পূজা হেগড়ে, শেহনাজ গিল। এই ছবি আগামী বছর ঈদ উপলক্ষে মুক্তি পাবে। এ ছাড়া আগামী বছর দিওয়ালিতে আসতে চলেছে ভাইজান অভিনীত ‘টাইগার থ্রি’ ছবিটি। এই ছবিতে তাঁর বিপরীতে আছেন ক্যাটরিনা কাইফ