বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভাসমান বেহালাটির পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় অনেকেই তাঁদের নৌকার গতি কমিয়ে দেন। দুদণ্ড বেহালার সুর উপভোগ করেন। আকার ও চেহারায় বেহালার মতো হলেও আসলে এটি একটি নৌকা। এই জলবেহালা বানাতে মারকি ও তাঁর দলের লেগেছে প্রায় এক বছর। শিল্পকলা, সংগীত ও সংস্কৃতির শহর ভেনিসে যাঁরা কোভিডে মারা গেছেন, তাঁদের স্মরণে এ জলবেহালাটি বানানো হয়েছে। একদল শিল্পী কালো স্যুট ও গাউন পরে খালি পায়ে সেটার ওপর দাঁড়িয়ে বেহালা বাজান।

গত আগস্টে ডি মারকি ভেনেজুয়েলা টুডেকে এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, এই জলযানটি নোয়ার নৌকার থেকে অনুপ্রাণিত হয়েই বানানো। তিনি বলেন, ‘নোয়া যেমন প্রাণীদের তাঁর নৌকায় তুলে নিয়েছিলেন, আমরাও তেমন এই বেহালায় করে শিল্পকে ছড়িয়ে দিতে চাই।’

আগেও এ রকম উদ্ভট সব জলযান তৈরি করেছেন লিভিও ডি মারকি। ১৯৮৫ সালে ভেনিসের খালে কাগজের নৌকার মতো দেখতে একটি নৌকা ভাসিয়েছিলেন তিনি। সেই থেকেই তিনি এ কাজ অব্যাহত রেখেছেন। ভেনিসের খালগুলোতে প্রায়ই এ রকম আজব সব জলযান ভাসিয়েছেন তিনি। সেগুলোর মধ্যে আছে অতিকায় জাহাজ বা পুরোনো দিনের মডেলের গাড়ির মতো নৌকা। তাঁর সর্বশেষ সৃষ্টি ছিল ফেরারি এফ৫০, যেটি মোটরের সাহায্যে জলে চলত। একটি সত্যিকারের স্পোর্টস কারের যে বৈশিষ্ট্যগুলো থাকে, তার সবই ওই জলগাড়ির ছিল।

গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন