default-image

গান গাইতে গিয়ে বিভিন্ন অনুরোধ ও আবদার শুনতে হয় কণ্ঠশিল্পী সালমাকে। বর্তমানে ইউটিউবের কারণে এই আবদার আরও বেড়েছে। প্রায়ই তাঁকে গানের প্রযোজকেরা নতুন ইউটিউব চ্যানেলের জন্য গান করতে বলেন। এমন আবদার রাখতে হচ্ছে এ গায়িকাকে। সম্প্রতি তিনি ৭০টির মতো গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। এগুলো বেশির ভাগই নতুন চ্যানেলে মুক্তি পাবে। তবে এসব গানের প্রচারণা নিয়ে তিনি হতাশ। তা সত্ত্বেও তিনি নিয়মিত গান করে যেতে চান। ক্যারিয়ারে তাঁর টার্গেট পাঁচ হাজার গান করা।

আগের তুলনায় এখনকার গানের প্রচারমাধ্যম ব্যতিক্রম। বেশির ভাগ গান শুধু ইউটিউবের মধ্যে সীমাবদ্ধ। তবে বেশির ভাগ ইউটিউবের গান দর্শকপ্রিয়তা পাচ্ছে না। সালমা মনে করেন, এখানে যেগুলো আলাদা করে টাকা খরচ করে প্রচার চালানো হয়, সেগুলোই শুধু দর্শকের কাছে পৌঁছাচ্ছে। তিনি জানান, যেসব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার বেশি, সেসব গানের ভিউ বেশি। বাকি গানগুলোর কথা দর্শক জানছেনই না। এভাবে অনেক ভালো গান দর্শক শোনার সুযোগ পাচ্ছেন না। তিনি বলেন, ‘দিন দিন ইউটিউব চ্যানেলের ওপর আমরা নির্ভর হয়ে যাচ্ছি। গান মুক্তির মাধ্যম হচ্ছে ইউটিউব। এখানে প্রতিষ্ঠিত চ্যানেলগুলো ভিউয়ার পাচ্ছে। সেগুলোর সঙ্গে আমাকে সবচেয়ে বেশি প্রতিযোগিতা করতে হচ্ছে। কারণ, আগের তুলনায় আমি ৮০ ভাগ গানই নতুন চ্যানেলের জন্য গাইছি। এখন এ রকম ঘটনা আমার সঙ্গে সবচেয়ে বেশি হচ্ছে।’ অনেক নতুন ইউটিউব চ্যানেল চালুই হচ্ছে সালমার গান দিয়ে। সেসব চ্যানেলের মালিকেরা এক গানে ৫ বা ১০ হাজার সাবস্ক্রাইবার পেলেই খুশি।

বিজ্ঞাপন
default-image

করোনার প্রথম দিকে কাজ নিয়ে অনেকটাই ভেঙে পড়েছিলেন সালমা। বেশ কিছুদিন ঘরে বসে ছিলেন। এখন কিছুটা ব্যস্ততা বাড়ছে। চেষ্টা করছেন নিয়মিত স্টেজ শো ও গান নিয়ে ব্যস্ত থাকতে। তিনি গানের সংখ্যা বাড়াতে চান। নিয়মিত গান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমার টার্গেট ক্যারিয়ারে পাঁচ হাজার গান গাওয়া। আমাদের দেশের লালন শাহ থেকে শুরু করে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, শাহ আবদুল করিম, দুরবিন শাহ—তাঁদের গানের সংখ্যা অসংখ্য। কিন্তু হাজার হাজার গানের মধ্যে কয়েক শ গান পরিচিতি পেয়েছে। আমি বেঁচে থাকলে পাঁচ হাজার গান করব। তারপর হিসাব করব, ১০০ গান জনপ্রিয় হয়েছে কি না।’ সালমাকে এই পথ পাড়ি দিতে আরও অনেক গান গাইতে হবে। কারণ, এখন পর্যন্ত তিনি মাত্র ৩০০–এর মতো গান গেয়েছেন। তিনি সবার সুর ও কথায় প্রতিনিয়ত গান করে যেতে চান।

default-image

সম্প্রতি ‘সর্বতো মঙ্গল রাধে’ গানের কপিরাইট নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। এবার সেই বিতর্কের বিষয়টি গানে গানে তুলে এনেছেন সালমা। সালমা ও পলাশের গাওয়া এই গানের প্রথম লাইন, ‘প্রেমের দেবী ওগো রাধে রাই বিনোদিনী, তোমায় নিয়া বিতর্কের এই কারণটা কী শুনি’। গানের সুর সংগৃহীত। গানের কথায় উঠে এসেছে গানের কথা, সুর ও সংগীত নিয়ে কপিরাইট ইস্যুকেন্দ্রিক বিতর্ক। সালমা জানান, গানের কথা ও প্রেক্ষাপট শোনার পরে তাঁর ভালো লেগেছে। কারণ, এটি ‘সর্বতো মঙ্গল রাধে’ গানটি নিয়ে বিতর্ককে উপজীব্য করে। গানটি লিখেছেন জন্মে জয় কুমার দেব। সংগীত আয়োজন করেছেন কলকাতার অরিন।

default-image
বিজ্ঞাপন
গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন