বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পূজা পর্যায়ের ‘সকাতরে ঐ কাঁদিছে সকলে’ এবং ইংরেজ কবি ও পাদ্রি জন নিউটনের প্রচলিত ভক্তিগীতি ‘আমেজিং গ্রেস’কে এক করে তৈরি করা হয়েছে ‘মঙ্গলবারতা’। এর সংগীতায়োজন করেছেন ভারতের সৈকত বিশ্বাস গোবলো এবং সংগীতচিত্র নির্মাণ করেছেন শুভব্রত সরকার। এটি অবমুক্ত হবে ধ্রুব মিউজিক স্টেশন থেকে।

পরিবেশনাটি প্রসঙ্গে রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা বলেন, এই মহামারি, যুদ্ধ বিগ্রহের সময় আমরা আবারও বুঝছি যে, মানুষ বড় অসহায়। দিন শেষে একমাত্র অধিপতিই আমাদের শেষ সম্বল। সকল হতাশা, সকল পরাজয়, সকল অসফলতার উত্তর অধিপতি। সকল কিছুর শেষে একমাত্র অধিপতির কাছেই আমাদের শেষ আকুতি, শেষ প্রার্থনা। এভাবেও রবীন্দ্রনাথ গানে ভেবেছেন। এটিরই উপস্থাপন হল সংগীতচিত্রটি। যা সত্যিই আমাকে মুগ্ধ করেছে।

default-image

সংগীতশিল্পী স্বপ্নীল সজীব বলেন, ‘রবীন্দ্রসংগীত আমার পথ চলার দিশারি। যে গানের সুর, যে গানের কথা আমার জীবনের বীজমন্ত্র বলতে পারি, যে গান আমার চেতনার উন্মেষের লগ্ন থেকে আমাকে এতটা পথ জীবনের এই সুন্দর পথ চলায় এগিয়ে নিয়ে এসেছে আমার কৈশোর, আমার যৌবন, সায়াহ্ন পর্যন্ত সেই গান বুকে আঁকড়ে যেন থাকতে পারি এটাই আমার একান্ত প্রার্থনা।’

গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন