সাবেক স্বামী ইসলাম নুরুলের সঙ্গে সাজিয়া সুলতানা পুতুল
সাবেক স্বামী ইসলাম নুরুলের সঙ্গে সাজিয়া সুলতানা পুতুলছবি : সংগৃহীত

বিয়ের দুই বছরের মাথায় বিচ্ছেদের খবর নিজেই জানালেন তরুণ প্রজন্মের সংগীতশিল্পী সাজিয়া সুলতানা পুতুল। গতকাল রাতে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে বিবাহিত জীবনের ইতি টানার খবরটি জানিয়েছেন। এই পোস্টে তিনি সংসার না করতে পারার কারণও উল্লেখ করেছেন।

default-image

প্রথম আলোর সঙ্গে আজ সোমবার সকালে কথা হয় পুতুলের। তিনি বলেন, ‘বিয়ের কয়েক মাসের মাথায় আমাদের মধ্যে বোঝাপড়ার সমস্যা তৈরি হয়। আস্তে আস্তে তা বাড়তে থাকে। একটা পর্যায়ে সিদ্ধান্ত নিই বিয়ের সম্পর্ক থেকে সরে আসার। তাই বিয়ের প্রথম বছরেই বিচ্ছেদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেই। দিন–তারিখ ও মাসটা জানাতে চাইছি না।’
পুতুল লেখেন, ‘দুই বছর আগে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলাম, ঢুকেছিলাম যুগল জীবনযাপনে। বিবাহিত জীবনের খুব অল্প দিনের মাথায় বুঝেছিলাম পথটা কঠিন থেকে আরও কঠিন হচ্ছে। এই পথটা ঠিক যেন আমার কল্পনার সেই পথটা নয়। যে পথে আনন্দে হেঁটে যাওয়া যায়। মত আর আদর্শিক পার্থক্যগুলো নিছক পার্থক্য থেকে রূপ নিচ্ছিল চূড়ান্ত দ্বন্দ্বে। সম্পর্ক মুমূর্ষু হচ্ছিল, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছিল আমার সৃষ্টিশীল সত্তা। বিচ্ছিন্নতার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম তখনই। হয়েছিল বিচ্ছেদ। অতঃপর আবার আমার সেই একক জীবনে ফেরা।’

বিজ্ঞাপন
default-image

পুতুল এ–ও লেখেন, ‘সুর আর সাহিত্যের সাথে নির্বিঘ্ন একক সংসার। বিয়েটা ঘটা করে হওয়ার বিষয়। বিচ্ছেদে ঘটা করার কিছু নেই। বিচ্ছেদে বিষাদের সুর বাজে আত্মায়। সেই সুর মন পাড়াতে একলা বাজাই ভালো। সবাইকে নিয়ে সেই বিচ্ছেদি সুর উদ্‌যাপনের কিছু নেই।’
বিচ্ছেদের পর পুতুল তাঁর অবস্থা প্রসঙ্গে লেখেন, ‘কিন্তু চূড়ান্ত সত্য এই, বিষাদে কোথাও মুক্তির গন্ধ মিশে থাকে, থাকে মুমূর্ষুতার অবসানে লম্বা করে নিশ্বাস নেওয়া। জীবনটা বেঁচে ওঠার সুযোগ পায় আরও একবার। সেই জীবনটাকে বাঁচিয়ে দেওয়া জীবনের প্রতিই সুবিচার বলে বিশ্বাস করি।’

default-image

পুতুলের বিচ্ছেদ হয়েছে আরও আগে। তবে কবে, কখন তা পরিষ্কার করে কিছুই বলেননি তিনি। এত দিন পর বিচ্ছেদের খবর প্রকাশ করার কারণ প্রসঙ্গে পুতুল লিখেছেন, ‘এত দিন পর এই কথাগুলো বলার একটাই কারণ, সম্পর্কটার ভেতরে থাকলে যৌথ জীবন উদ্‌যাপনের দুই বছর হতো আজ। যেহেতু একক জীবন যাপন করছি, এই দিনটার কোনো বিশেষত্ব বা মহিমা নেই। বছরের অন্য দিনগুলোর মতোই একটা তারিখমাত্র। শুভেচ্ছা, শুভকামনা জানানোর কিছু নেই। জীবন সহজ হওয়ার স্বপ্নে যেমনি শুভকামনা জানাই নিজেকে নিজে প্রতিদিন, আজও তা জানাচ্ছি। ফেসবুক যতই স্মৃতিতে ফেরাতে চাক দুই বছর আগের আজকের দিনে, নিজের কাছে নিজের প্রত্যয় কেবলই সামনে তাকানোর।’

default-image

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ১৫ মার্চ বাগদান হয়েছিল পুতুলের। এরপর ২০ মার্চ বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা হয় তাঁদের। তাঁর সাবেক স্বামী কানাডাপ্রবাসী আলোকচিত্রী ইসলাম নুরুল। ওয়েডিং ফটোগ্রাফির একটি এজেন্সি ছিল বলে বিয়ের সময় জানা যায়। বিয়ের ৮ মাস আগে পুতুলের বাড়িতে পারিবারিকভাবে এই বিয়ের সম্বন্ধ আসে। আর বিয়ের মাত্র ৩ দিন আগে দেখা হয়েছিল পুতুল ও নুরুলের।

বিজ্ঞাপন
গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন