default-image

প্রকৃতির কাছে ফিরে যাওয়ার আকুতি নিয়ে সাব্বির নাসির গেয়েছেন ‘তুমি দমে দম’ শিরোনামে নতুন এক গান। তাঁর নিজের ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হয়েছে গানটি। ১ অক্টোবর প্রকাশের পর থেকেই নতুন সংগীতচিত্রটি থেকে বেশ সাড়া পাচ্ছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

লোকসুরের আধ্যাত্মিক ভাবের গান ‘তুমি দমে দম’–এর কথা ও সুর করেছেন ওমর ফারুক, যিনি বিশাল নামে পরিচিত আর সংগীত পরিচালনা করেছেন জাহিদ নিরব। বান্দরবানের প্রাকৃতিক পরিবেশে সংগীতচিত্রের দৃশ্য ধারণ করা হয়েছে, যেখানে মডেল হিসেবে দেখা গেছে শিল্পী সাব্বির নাসির, ইভান ও বন্নিকে। সংগীতচিত্র পরিচালনা করেছেন শাহরিয়ার পলক। সাব্বির নাসির বলেন, ‘গানটায় একটা আধ্যাত্মিক বার্তা আছে। এর আগে বিশালের লেখা “আমারে দিয়া দিলাম তোমারে” গেয়ে শ্রোতাদের প্রশংসা পেয়েছি। নতুন গানটিও আমার ভালো লেগেছে। গানটির জন্য নিরব খুব সুন্দর সংগীত করেছেন। গানের ভাব অনুসরণ করে আমি আত্মার জগতে প্রবেশের চেষ্টা করেছি। আশা করি, শ্রোতাদের ভালো লাগবে।’

বিজ্ঞাপন

এর আগে প্রকাশিত হয়েছে সাব্বির নাসিরের গাওয়া ‘হর্ষ’, ‘ফুল ফোটাব’, ‘ফাগুন আসছে’, ‘জল জোছনা’, ‘পোকা’, ‘আমারে দিয়া দিলাম তোমারে’, ‘মৃত জোনাকি’ গানগুলো। প্রতিটি গানের জন্য নির্মিত হয়েছে ব্যতিক্রম সংগীতচিত্র, যেগুলো বিভিন্ন মহলে বেশ আলোচিত হয়। ১৯৯৮ সালে গানের দল মেটামরফোসিসের ভোকাল ছিলেন সাব্বির নাসির। গিটারিস্ট হিসেবে বাজিয়েছেন দেশের অনেক খ্যাতিমান শিল্পীর সঙ্গে। একসময় সংগীতাঙ্গন ছেড়ে গিয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছেন করপোরেট ব্যক্তিত্ব হিসেবে। প্রায় দুই দশক পর আবারও গানে ফিরেছেন তিনি।

default-image

গানে সাব্বির নাসিরের হাতেখড়ি ছোটবেলা থেকেই। একসময় খ্যাতিমান ওস্তাদদের কাছ থেকে তালিম নিয়েছেন। গান গাওয়ার পাশাপাশি তিনি লিড গিটার বাজান। ১৯৮৫ সাল থেকে তিনি ব্লুজ মিউজিকের চর্চা করছিলেন। সুফিবাদ নিয়ে আগ্রহ থেকে লিখেছেন বেশ কিছু বই। ১৯৯৮ সালে মেটামরফোসিস ব্যান্ডের সঙ্গে ‘জীর্ণ শহরে বৃষ্টি নামে’ অ্যালবামে কাজ করেছেন। জিম মরিসন আর মার্ক নফলারের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছেন সব সময়। সমসাময়িক মিউজিশিয়ান আর বন্ধুদের অনুপ্রেরণায় আবার স্টুডিওতে ফিরেছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন