default-image

সমকালীন ভারতীয় সংগীতের দুনিয়ার কাছে ভূপিন্দর সিং গজলসম্রাট নামে খ্যাত। অবশ্য গত কয়েক বছর গানের দুনিয়ায় তাঁর তেমন উপস্থিতি দেখা যায়নি। বার্ধক্যজনিত একাধিক সমস্যায় ভুগছিলেন বর্ষীয়ান শিল্পী, জানান তাঁরই স্ত্রী প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী মিতালী মুখার্জি। সোমবার রাত ১২টা ৩০ মিনিটে মুম্বাইয়ের আন্ধেরির ওসিওয়ারা শ্মশানে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। ভূপিন্দর সিংয়ের শেষকৃত্যের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তাঁর নিকটাত্মীয়রা। গতকাল মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ তাঁর শেষকৃত্য হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু কোভিডের কারণে আগের রাতেই তাঁকে দাহ করা হয়।

default-image

কথা প্রসঙ্গে রুনা লায়লা জানালেন, ভূপিন্দর সিং ও তিনি যে ছবির জন্য গান গেয়েছিলেন, সেটির নাম `ঘারোন্দা'। ছবিটি ১৯৭৭ সালে মুক্তি পায়। এই ছবিতে গুলজারের লেখা তাঁদের গাওয়া গানের সংগীত পরিচালক ছিলেন জয়দেব। সত্তরের দশকের শেষে মুম্বাইয়ের একটি স্টুডিওতে গানটির রেকর্ডিংয়ে অংশ নিয়েছিলেন ভূপিন্দর সিং ও রুনা লায়লা। দেশবরেণ্য এই শিল্পী জানালেন, গানটি তখন সুপারহিট হয়েছিল। শ্রোতাদের মুখে মুখে ছিল ‘দো দিওয়ানে শেহের ম্যায়’ গানটি। এই গানে পর্দায় ঠোঁট মিলিয়েছিলেন জারিনা ওয়াহাব ও অমল পালেকার।

default-image

রুনা বললেন, ‘দীর্ঘ সংগীতজীবনে একটিই গান গেয়েছি আমরা। গান গাওয়ার আগে থেকে তাঁকে চিনতাম। তিনি তো রাহুল দেববর্মনের সঙ্গে দারুণ গিটার বাজাতেন। তারপর নিজেও অনেক ভালো ভালো গান গেয়েছেন। আমার সঙ্গে গাওয়া গানও পপুলার হয়েছিল। এই গানের পর আমাদের আর কখনো দেখা হয়নি। তবে ফেসবুকে যোগাযোগ হতো। মিতালীর মাধ্যমেও খবর পেতাম। তাঁর সঙ্গেও ফেসবুকে যুক্ত ছিলাম। মেসেজ করলে কথা হতো, তিনিও মেসেজ পাঠাতেন। কেমন আছি না আছি, এ ধরনের কথাবার্তা বেশি হতো।’

default-image

‘মেরি আওয়াজ হি প্যাহচান হ্যায়, গর ইয়াঁদ রাহে’, সুরসম্রাট ভূপিন্দর সিংয়ের গাওয়া এই গানের কথাগুলোর মতো সত্যিই তাঁর গায়কি, তাঁর আসল পরিচয়। আর সুরের জাদুকর হয়ে আজীবন তিনি সংগীতপ্রেমীদের স্মৃতিতে থাকবেন। গতকাল সোমবার মধ্যরাতে মারা যান তিনি। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। এই সংগীতশিল্পীর মহাপ্রয়াণে ভারতীয় সংগীতের দুনিয়ায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। ভূপিন্দর সিং রেখে গেলেন বাংলা, হিন্দি ভাষায় অজস্র গান।

গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন