পাসপোর্ট অধিদপ্তরে নতুন ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করে ফল না পেয়ে গত বছরের ৩০ আগস্ট হাইকোর্ট রিট করেন আসিফ। প্রাথমিক শুনানি নিয়ে গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর হাইকোর্ট রুল দেন। রুলের শুনানি শেষে আজ ওই সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়।

আদালতে আসিফের পক্ষে আইনজীবী এ এস এম সাজ্জাদ হায়দার শুনানিতে ছিলেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নওরোজ মো. রাসেল চৌধুরী ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল এম এম জি সারোয়ার।

ই-পাসপোর্টের জন্য স্ত্রী, দুই সন্তানসহ একসঙ্গে ২০২১ সালের ১১ নভেম্বর পাসপোর্ট অধিদপ্তরে আসিফ ওই আবেদন করেন বলে জানান আইনজীবী সাজ্জাদ হায়দার। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‌‘আসিফের স্ত্রী ও দুই সন্তান ই-পাসপোর্ট পেয়েছেন। তবে আবেদনের ভিত্তিতে ই-পাসপোর্ট না পেয়ে এ বিষয়ে নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করে রিট করেন আসিফ। রুলে ওই আবেদনের ভিত্তিতে তাঁকে নতুন ই-পাসপোর্ট দিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছিল। শুনানি শেষে হাইকোর্ট ই-পাসপোর্টের জন্য আসিফের করা আবেদনটি দ্রুত নিষ্পত্তি করতে পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে নির্দেশ দিয়েছেন।’

সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল এম এম জি সারোয়ার প্রথম আলোকে বলেন, ই-পাসপোর্টের জন্য আসিফের করা আবেদনটি আইনবিধি অনুসারে দ্রুত নিষ্পত্তি করতে পাসপোর্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আসিফ ই-পাসপোর্ট পাবেন কি না, তা এ আবেদন নিষ্পত্তির মধ্য দিয়ে জানা যেতে পারে।