সত্তর দশকে জনপ্রিয় ব্যান্ড ফিডব্যাকে যোগ দেন এক তরুণ। যাঁর কণ্ঠ দিন দিন হয়ে উঠেছে সারা দেশের। প্রেম, দ্রোহ, আরাধনা, সামাজিকতা—গানের নানা ধাঁচ ও আমেজে তিনি মাতিয়ে রেখেছেন আজও। ১৯৭৮ সালে যাত্রা শুরু করা এই সংগীতশিল্পী ৪৫ বছরের যাত্রার সাফল্য উদ্‌যাপন করতে চান।

ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আশীষ কুমার চক্রবর্তী জানান, কনসার্টটি অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৮ মার্চ সন্ধ্যায় রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশের মূল মিলনায়তনে। সেখানে সংবর্ধনা দেওয়া হবে তাঁকে। একই সঙ্গে সংগীতজীবনের দীর্ঘ পথচলার জানা-অজানা গল্পও জানাবেন। আয়োজনে চমক হিসেবে থাকবে দেশের জনপ্রিয় পাঁচ ব্যান্ড দলের পরিবেশনা, এ তালিকায় আছে ফিডব্যাক, মাইলস, দলছুট, ওয়ারফেজ ও পেন্টাগন। তারা মাকসুদের গাওয়া জনপ্রিয় গানের সঙ্গে জ্যামিং করবে।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ মিউজিক্যাল ব্যান্ডস অ্যাসোসিয়েশনের (বামবা) প্রথম সভাপতি মাকসুদুল হককে শুভেচ্ছা জানাতে এসেছিলেন সংগঠনটির বর্তমান সভাপতি হামিন আহমেদ, ফিডব্যাকের ফোয়াদ নাসের বাবু, পেন্টাগন ব্যান্ডের প্রধান আলী সুমন প্রমুখ।

মাকসুদুল হককে ব্যান্ড সংগীতের পথিকৃৎ উল্লেখ করে হামিন আহমেদ বলেন, ‘আমাদের বহুদিনের এই পথচলায় অনেক মুহূর্ত আছে উপভোগের, অনেক গল্প আছে, যা চিরকাল রঙিন হয়ে থাকবে। প্রিয় বন্ধুকে আমি শিল্পীজীবনের ৪৫ বছরে শুভেচ্ছা জানাই। আসছে ১৮ মার্চ তাকে নিয়ে যে আয়োজন, সেখানে আমি ও আমার ব্যান্ড মাইলস উপস্থিত থাকব, গান গাইব। এটা আমার জন্য আনন্দের।’

অভিনন্দন জানিয়ে ফোয়াদ নাসের বাবু বলেন, ‘মাকসুদের আছে পাওয়ারফুল এক ভয়েস, যেখানে গানের কথা মুখ্য হয়ে ওঠে সুরে সুরে। তার কণ্ঠে মায়া আছে। তার সুর আরও বেশি চমৎকার। তার অনেক গানে বাজিয়েছি আমি। সেসব গান সবাই গ্রহণ করেছে। আমি ধন্য তার সঙ্গে কাজ করে, পথ চলতে পেরে। প্রজন্মের পর প্রজন্ম তার গান গাইবে, তার সুরে ভাসবে।’

পেন্টাগন ব্যান্ডের প্রধান আলী সুমন, ‘আমার ভাষার যে অভিধান, একজন মাকসুদুল হককে নিয়ে বলতে গেলে তা খুবই ছোট। তিনি রক মিউজিকের বিপ্লবী। তাঁর সংগীতজীবনের ৪৫ বছর পূর্তির কনসার্টে আমি গাইব, এ জন্য আমি সম্মানিত।’

সংবাদ সম্মেলনে আয়োজক আশীষ কুমার চক্রবর্তী বলেন, ‘এখনকার প্রজন্মের ব্যান্ড শিল্পীদের গানের কথাও যখন বোঝা যায় না, তখন মাকসুদ ভাইয়ের “খুঁজি তোমাকে খুঁজি” গানের চন্দ্রবিন্দুটি আমাদের হৃদয়কে উদ্বেলিত করে! অসাধারণ গায়কি, ব্যতিক্রমী পারফরম্যান্স এবং না দেখেই শত শত কঠিন গানের পঙ্‌ক্তিমালা অবলীলায় গেয়ে যাওয়াই মাকসুদ ভাইকে করেছে অনবদ্য। তাই তাঁর লাখো শ্রোতার ভিড়ে গুণমুগ্ধ আমি স্বপ্ন দেখছি এই অনুষ্ঠান আয়োজনের। ১৮ মার্চ ‘মাকসুদ-৪৫ ইয়ার্স ইন মিউজিক’ কনসার্টটি সবাইকে সঙ্গে নিয়ে উদ্‌যাপন করতে চাই।’

কনসার্টটিতে এক হাজার আসনের ব্যবস্থা থাকবে বলে জানান আয়োজক আশীষ কুমার চক্রবর্তী। তিনি বলেন, কবে কোথায় টিকিট পাওয়া যাবে, তা পরবর্তী সময়ে জানানো হবে।