চাক বেরির গিটারের মতো লুইসের পিয়ানো ১৯৫০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে রক এন রোলে অপরিহার্য ছিল। তিনি টেনেসির সান রেকর্ডস ট্যালেন্টপুলের অংশ ছিলেন, যার মধ্যে এলভিস প্রিসলি, জনি ক্যাশ, কার্ল পারকিন্স ও রয় অরবিসন অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। লুইস তাঁদের সবাইকে ছাড়িয়ে যান।

জেরি লি লুইস ১৯৮৬ সালে রক এন রোল হল অব ফেমে অন্তর্ভুক্ত হওয়া প্রথম শিল্পীদের মধ্যে একজন। তিনি এতটাই প্রভাবশালী ছিলেন যে যখন জন লেনন লস অ্যাঞ্জেলেসের একটি শোতে মঞ্চের নেপথ্যে তাঁর সঙ্গে দেখা করেছিলেন, তখন ‘দ্য বিটল’ লুইসের পায়ে চুম্বন করেন।

১৯৩৫ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর লুইজিয়ানায় জন্ম হয় লুইসের। চার বছর বয়সে পিয়ানোতে আগ্রহী হয়ে ওঠেন। লুইস পরে টেনেসিতে চলে যান, যেখানে তিনি সান স্টুডিওতে স্টুডিও সংগীতশিল্পী হিসেবে কাজ পান।

ক্যারিয়ারে যেমন খ্যাতি পেয়েছেন, তেমনি সারা জীবনে বিতর্ক তাঁর পিছু ছাড়েনি।
১৩ বছর বয়সী চাচাতো বোন মাইরা গ্যাল ব্রাউনকে বিয়ে করে প্রথম বিতর্কের জন্ম দেন। এ ঘটনা তাঁর সংগীত ক্যারিয়ারকে বড় ধাক্কা দেয়। পরে ঠিকই ফিরে আসেন তিনি।
আজীবন সম্মাননাসহ চারটি গ্র্যামি পুরস্কার জেতেন লুইস। তাঁর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন সংগীতশিল্পী, তাঁর ভক্ত–শ্রোতাসহ সংগীতপ্রেমীরা।