২০১৭ সালে ‘ঝুমুর’ ধারাবাহিক দিয়ে অভিনেত্রী হিসেবে ছোট পর্দায় যাত্রা শুরু করেন। কিন্তু চার বছর পর জীবন তাঁকে আবারও কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেয়।
সালটা ২০২১ , মাসটা ফেব্রুয়ারি। আবারও জন্মদিন পালনের পরপরই পান দ্বিতীয়বার ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার খবর। এবার করতে হবে জটিল অস্ত্রোপচার। ভেঙে পড়েননি ঐন্দ্রিলা। ঠিকই সুস্থ হয়ে ফিরেছিলেন কাজে। চেয়েছিলেন কাজের মধ্যে ব্যস্ত থাকায় কঠিন রোগের সঙ্গে লড়ার প্রেরণা খুঁজে নিতে। কিন্তু ১ নভেম্বর হঠাৎ ব্রেন স্ট্রোক করে হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর ২০ দিনের সংগ্রাম। অবশেষে আজ দুপুরে চলে গেলেন ছোট পর্দার এই জনপ্রিয় মুখ।

ক্যানসার থেকে সেরে ওঠার পর পশ্চিমবঙ্গের গণমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ঐন্দ্রিলা বলেছিলেন, তিনি সব সময়ই ইতিবাচক থাকেন। এটিই তাঁকে ভালো থাকতে সাহায্য করে।

সেই সাক্ষাৎকারে নিজের সবচেয়ে প্রিয় জায়গা হিসেবে শুটিং ফ্লোরকেই অবিহিত করেছিলেন। বলেছিলেন, ‘শুটিংয়ে ফিরে ভালো লাগছে। এটিই আমার সবচেয়ে প্রিয় জায়গা। শুটিং করতেই ভালোবাসি। শুটিং থেকে দূরে থেকে খুব খারাপ ছিলাম। আসলে কেমোথেরাপি নেওয়ার পর যে কাজ করতে পারব, সেটা ভাবিনি। এটিই জীবনের বড় পাওয়া।’

দুইবার ক্যানসার থেকে সুস্থ হওয়ার পর অদম্য মনোবলের কারণে আত্মীয়, বন্ধুবান্ধব থেকে সহকর্মীরা তাঁকে ‘লড়াকু মেয়ে’ বলে ডাকতেন। ঐন্দ্রিলা বলেছিলেন, ‘আমাকে তো লড়তেই হবে, সেটা আমি হাসতে হাসতে লড়তে পারি, কাঁদতে কাঁদতেও। আমি হাসিমুখটিই বেছে নিয়েছি। এটাই যদি মনের জোর হয়, তাহলে তা–ই। আমি চাই না, আমার মতো পরিস্থিতিতে কেউ পড়ুক, মনের জোর যে আছে, সেটা এভাবে প্রমাণ করুক। আমি শুধু জানি, আমাকে লড়তে হবে। আমি লড়ছি।’

ঐন্দ্রিলার সব লড়াই থেমে গেল আজ।