তখন চিকিৎসকেরা জানান, স্ট্রোকের ফলে ঐন্দ্রিলার মাথায় রক্ত জমাট বেঁধেছে। গতকাল মঙ্গলবার আবার ঐন্দ্রিলার ব্রেন স্ক্যান করা হয়। সেই রিপোর্টে দেখা যায়, স্ট্রোকের পর ঐন্দ্রিলার মাথার যেদিকে অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল, তার উল্টা পাশে ছোট ছোট ক্লটে রক্ত জমাট বেঁধেছে। চিকিৎসকেরা জানান, এই ক্লটগুলো এতই ছোট যে অপারেশন করা যাবে না। এগুলো ওষুধের মাধ্যমেই গলিয়ে ফেলতে হবে।
এ সংক্রমণ চিন্তা বাড়িয়ে দিয়েছে চিকিৎসকদের। আগের ওষুধ বদলে এই অভিনেত্রীকে দেওয়া হয়েছে নতুন অ্যান্টিবায়োটিক। সংক্রমণের সঙ্গে তাঁর শরীরে জ্বরও রয়েছে। পরিস্থিতি আগের থেকে সংকটাপন্ন। তাই বাড়তি সতর্কতার সঙ্গে তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

গত সপ্তাহে ঐন্দ্রিলার সুস্থ হওয়ার একটা আশা দেখা গিয়েছিল। কিন্তু সপ্তাহ ঘুরতেই বেড়ে গেল উদ্বেগ। অভিনেত্রীর কাছের মানুষ, সতীর্থ, ভক্তরা এখন চিন্তিত। সবাই তাঁর সুস্থতার জন্য প্রার্থনা করছেন। ঐন্দ্রিলার শরীর নিয়ে কোনো সঠিক তথ্য দিতে পারছেন না চিকিৎসকেরা। ঐন্দ্রিলার বয়স যেহেতু কম, তাই তিনি রোগের সঙ্গে লড়তে পারবেন বলে আশা করছেন চিকিৎসকেরা।

দুবার ক্যানসারের চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে কাজে ফিরেছিলেন ঐন্দ্রিলা শর্মা। সুস্থ হওয়ার পর ছোট পর্দার জনপ্রিয় শো ‘দিদি নাম্বার ওয়ান’-এর মঞ্চে হাজির হয়েছিলেন। তাঁর ক্যানসার জয়ের গল্প অনুপ্রাণিত করেছিল ভক্তদের। ভক্তরা আশা করছেন, এবারও ফিরে আসবেন ঐন্দ্রিলা এবং আবারও তাঁদের শোনাবেন অনুপ্রেরণার গল্প।