বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় যখন জয়া আহসানের সঙ্গে কথা হয়, তখন তিনি কলকাতায় অবস্থান করছিলেন। বললেন, নতুন দুটি চলচ্চিত্রের শুটিংয়ের কারণে তাঁর এবারের যাওয়া। রোববার থেকে একটি ছবির শুটিং শুরু হতে যাচ্ছে।

default-image

ইউএনডিপির শুভেচ্ছাদূত হওয়ার ব্যাপারটি আনন্দের উল্লেখ করে জয়া বলেন, ‘শুভেচ্ছাদূত হতে পেরে একদিকে যেমন আনন্দিত, অন্যদিকে ইউএনডিপির সঙ্গে দেশের মানুষের জন্য কাজ করতে পারব ভেবে নিজেকে সম্মানিত মনে করছি। আমাদের এই সুন্দর পৃথিবী রক্ষার জন্য যে লক্ষ্যমাত্রা, যা এসডিজি নামে পরিচিত, নির্ধারণ করা হয়েছে, ২০৩০ সালের মধ্যে সেটি অর্জন করতে হলে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। আর আমি আমার কাজের মধ্যে দিয়ে এই বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে চেষ্টা করব। যেন আমরা সবাই মিলে বাংলাদেশসহ বিশ্বকে আরও সুন্দর, সহনশীল করে গড়ে তুলতে পারি।’

default-image

ইউএনডিপির সঙ্গে এসডিজি ছাড়াও আরও অন্যান্য বিষয়, যেমন দারিদ্র্য, নৈতিকতা, মূল্যবোধ, সুশাসন, সহনশীলতা, পরিবেশ, জ্বালানি ও লিঙ্গসমতা নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে কাজ করবেন বলে জানালেন জয়া আহসান।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন