বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

চঞ্চল বলেন, ‘টেলিভিশন নাটকের আগে বাজেট ছিল মোটামুটি সম্মানজনক। ভালো রাইটার ছিল। ভালো নির্মাতারা নিয়মিত কাজ করতেন। এখন ইউটিউবের জন্য যেসব গল্প বানানো হচ্ছে, সেগুলোর অবস্থা বেহাল। ভালো চিত্রনাট্যকার লিখছেন না। আগের অনেক নির্মাতা কাজ করছেন না। আমি পুরোপুরি সন্তুষ্ট হয়ে কাজ করতে চাই। যে কারণে টেলিভিশন গল্প টানছে না।’

default-image

এখনো বাইরে বের হলে অভিনীত নাটকের চরিত্রের নাম দর্শকদের কাছ থেকে শুনতে হয়। দোকান কিংবা রাস্তা থেকে প্রায় কানে ভেসে আসে তাঁর নাটকের সংলাপ। এগুলো বেশ উপভোগ করেন। তিনি বলেন, ‘এখন টেলিভিশন গল্পের গ্রহণযোগ্যতা কম। টেলিভিশন নাটকে ধস নেমেছে। মানসম্পন্ন কাজ কম হয়। এখন ছাড় দিয়ে কাজ করা মানে ১০টি খারাপ কাজের সংখ্যা বাড়বে। এই পথেই আমি হাঁটতে চাই না। এসব বিবেচনা করে কাজ করছি। এখন ওয়েবের কাজে সব রকম সাপোর্ট পাচ্ছি। একই সাপোর্ট টেলিভিশনে পেলে অবশ্যই কাজ করব। ভালো কাজ হলে প্ল্যাটফর্মভিত্তিক আলাদা কোনো অ্যালার্জি নেই।’

default-image

তবে খুশির খবর, প্রায় তিন বছর পর আবার টেলিভিশনের দীর্ঘ ধারাবাহিকে ফিরছেন চঞ্চল চৌধুরী। ‘ষন্ডাপান্ডা’ নামের নাটকটি লিখেছেন বৃন্দাবন দাস। পরিচালনা করবেন সালাউদ্দিন লাভলু। আগামী ২০ অক্টোবর থেকে শুটিং। আরও অভিনয় করবেন বৃন্দাবন দাস, আ খ ম হাসান, শাহনাজ খুশি। পরে যোগ হবেন মোশাররফ করিম। চঞ্চল বলেন, ‘আমি ভালো কোয়ালিটির কাজ করতে চাই। সেই ক্ষুধা আমার মধ্যে আছে। এখন টেলিভিশনের মতো সিনেমাতেও আমার শত শত কাজের প্রস্তাব আসছে। গল্প শুনে মনে হচ্ছে, আমার ছবিগুলো করা উচিত না। যে কারণে সিনেমাও কম করা হয়। তবে টেলিভিশন আমার একটি ভালোবাসার জায়গা।’

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন