বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সোমবার বিকেলে সায়নীকে তোলা হয় আগরতলা আদালতে। সূত্র জানায়, পুলিশ সায়নীকে দুই দিনের জন্য নিজেদের হেফাজতে দেওয়ার আবেদন করে। কিন্তু শুনানির পর বিচারক সেই আবেদন খারিজ করে দেন। আদালত থেকে বেরিয়ে সায়নী বলেন, ‘সত্যের জয় হয়েছে, আদালতের প্রতি আমার বিশ্বাস ছিল। যে পথে লড়াই করেছি, সেই পথেই লড়ব। মিথ্যা মামলা করে আমাদের দমানো যাবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমাকে শারীরিকভাবে হয়রানি করা হয়েছে। রাতে যেভাবে আক্রমণ করা হয়েছে, তাতে আমি শঙ্কিত হয়ে পড়ি। তারপর আমাকে অন্য একটি পুলিশ স্টেশনে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।’

default-image

ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের একটি সভার পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় সায়নী ‘খেলা হবে’ স্লোগান দেন বলে অভিযোগ ছিল ত্রিপুরা পুলিশের। পাশাপাশি গাড়ি দিয়ে ধাক্কা মেরে কয়েকজনকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগও করা হয়। তাঁর বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টা, উসকানিমূলক বক্তব্য, অশালীন মন্তব্য, অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের মতো একাধিক মামলা করে পুলিশ। সায়নী জামিন পাওয়ার পর সাংসদ সুস্মিতা দেব বলেন, সায়নীর বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযোগ ছিল সাজানো। সায়নীর আইনজীবীর দাবি, ঘটনার সময় সায়নী গাড়ি চালাচ্ছিলেন না। ফলে তাঁর বিরুদ্ধে গাড়ি দিয়ে ধাক্কা হত্যাচেষ্টার অভিযোগ ভিত্তিহীন।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন