বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

শুটিংয়ে অনবরত কাজ করে হাঁপিয়ে উঠতেন কচি খন্দকার। হাঁটাহাঁটি করলেই বুকে ব্যথা হতো। পরীক্ষায় হার্টে ব্লক ধরা পড়লে গত মাসেই শেষে অপারেশন করতে হয় তাঁকে। এখন তিনি রয়েছেন বিশ্রামে। কচি খন্দকার বলেন, ‘অতিরিক্ত কাজ করতে গিয়ে জীবনটাকে হুমকির মধ্যে ফেলে দিয়েছি। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে শুটিংয়ে গিয়েছি, ফিরেছি গভীর রাতে। কখনো রাত দুইটা, তিনটা, কখনো ভোর। কখনো দুই ঘণ্টা, কখনো না ঘুমিয়ে পরদিন শুটিংয়ে গিয়েছি। অনেক সময় দেখা যায়, শুটিংয়ে খাওয়ার কোনো নিয়ম নেই। দীর্ঘদিন এসব অনিয়ম করেই অসুস্থ হয়ে পড়েছি।’

default-image

দীর্ঘ ক্যারিয়ারে বিরামহীন কাজ করে গেছেন কচি খন্দকার। চেয়েছিলেন অভিনয় ও পরিচালনায় নিজেকে ব্যস্ত রাখতে। সেখানে অসুস্থতা কিছুটা বাধা হয়ে দাঁড়ালেও এখন অভিনয়ের চেয়ে নিজের কাজের প্রতিই তিনি বেশি মনোযোগী। তিনি বলেন, ‘গত মাসের শেষের দিকে অপারেশন করিয়েছি। এখন ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছি। একটু একটু করে হাঁটার চেষ্টা করি। পুরো সুস্থ হতে তিন মাস লাগবে। সুস্থ হলে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে আবার কাজে ফিরব। দীর্ঘদিন ধরে ব্যস্ততার কারণে পরিচালনায় ফিরতে পারিনি। এখন আমার একমাত্র ইচ্ছা, তিনটা সিনেমা শেষ করা।’

default-image

কচি খন্দকারের শরীরের অবস্থা বেশ খারাপ ছিল। তবে এখন তেমন জটিলতা নেই। তিনি ভালো আছেন। নিয়মিত ওষুধ খাচ্ছেন। অপারেশনের কারণে স্বাভাবিক রুটিনে ফিরতে কিছুটা সময় লাগবে। তবে এখন থেকে চাপ নিয়ে কোনো কাজ করতে চান না তিনি। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি সিনেমায় অভিনয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন। সুস্থ হয়ে উঠলেই ‘মাই ডিয়ার ফুটবল’ সিনেমার কাজ শুরু করবেন তিনি।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন