বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গত বৃহস্পতিবার ফেসবুক লাইভে এসেছিলেন রচনা। পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো ‘দিদি নাম্বার ওয়ান’–এর তিনি সঞ্চালক। ফেসবুকের সেই ভিডিওতে তিনি জানান, অভিনয় ও সঞ্চালনার পর ফাঁকা সময়টা তিনি কাপড় বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছেন, নাম দিয়েছেন ‘রচনাজ ক্রিয়েশন’। এ সময় শাড়ি সংগ্রহ ও বিপণনের কাজে তাঁকে সহযোগিতা করছেন, এ রকম দুজনকে পরিচয় করিয়ে দেন সবার সঙ্গে। এ উদ্যোগ প্রসঙ্গে রচনা বলেন, যখন থেকে এ মাধ্যম চালু হয়েছে, তখন থেকেই অনেকে তাঁকে মাধ্যমটি ব্যবহার করে নতুন কিছু করার পরামর্শ দিয়েছেন। করোনাকালে তিনি বিষয়টি উপলব্ধি করেছেন। অভিনয়, সঞ্চালনা ও পরিবারের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি তিনি এ কাজটি শুরু করেছেন।

default-image

বৃহস্পতিবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজ থেকে প্রথম লাইভ করেন অভিনেত্রী। আর তারপর থেকেই শুরু হয় কটাক্ষ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে স্ক্রিনশট শেয়ার করে অনেকেই নানা রকম মন্তব্য করতে থাকেন। কেউ লেখেন, তারকাখ্যাতি ব্যবহার করে বেশি দামে শাড়ি বিক্রি করছেন তিনি। আবার কেউ কেউ প্রশ্ন তুলেছেন, যে শাড়ি গড়িয়াহাটে পাওয়া যায়, তা কেন বেশি দামে কিনতে হবে রচনাজ ক্রিয়েশন থেকে! ব্যবসায়ীদের অনেকে সেখানে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তাঁদের দাবি, অনেক নারীই ঘরে বসে বাড়তি রোজগারের জন্য ফেসবুকে এভাবে কাপড় বিক্রি করেন। তাঁদের লাইভগুলো দেখে অনেকে বিরক্ত হন, অন্যদিকে রচনার লাইভে এসে জড়ো হয়েছেন বহু মানুষ! অথচ যাঁরা সত্যিকারের অভাবী, তাঁদের তাচ্ছিল্য করা হয়।

রচনার পক্ষে অনেকেই মন্তব্য করেছেন। তাঁদের যুক্তি, অনেক সংগ্রাম করে রচনা তাঁর আজকের পরিচিতি তৈরি করেছেন। সেই পরিচিতি কাজে লাগানোর অধিকার তাঁর রয়েছে।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন