ভালোবাসা দিবসের নাটকের সকল ব্যস্ততা শেষ, অপেক্ষা প্রচারের
ভালোবাসা দিবসের নাটকের সকল ব্যস্ততা শেষ, অপেক্ষা প্রচারের

পরিচালক, অভিনয়শিল্পীসহ বিনোদন অঙ্গনের অনেকেরই ফেসবুকে একটা ‘ভার্চ্যুয়াল ট্যুর’ দিয়ে আসুন। দেখবেন তাঁদের দেয়ালজুড়ে শুধুই ভালোবাসা দিবসের নাটকের পোস্টার। শুটিং শেষ, সম্পাদনার কাজও প্রায় শেষ। টেলিভিশন, ফেসবুক আর ইউটিউবে ঘুরে বেড়াচ্ছে সেসব টিজার। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েও চলছে ভালোবাসা দিবসের নাটক দেখার ব্যাপারে আগ্রহী করার চেষ্টা।

default-image

গেল কয়েক বছরের মতো টেলিভিশনের পাশাপাশি ইউটিউবের জন্যও তৈরি হয়েছে ভালোবাসা দিবসের নাটক। অভিনয়শিল্পীদের সঙ্গে কথা বলেও তেমনটাই জানা গেছে। বিষয়টাকে বেশ ইতিবাচকভাবে দেখছেন টেলিভিশন চ্যানেল বাংলাভিশনের অনুষ্ঠান বিভাগের প্রধান তারেক আখন্দ। তিনি বলেন, ‘উৎসবকেন্দ্রিক এই প্রবণতা বেশি দেখছি। ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম চাইলেই অনেক কিছু করতে পারে। টেলিভিশন সব সময় তা পারে না। আমাদের অনেক কিছু ভাবতে হয়। তবে আমরা এসব প্ল্যাটফর্মকে মোটেও প্রতিদ্বন্দ্বী ভাবি না। তারা আমাদের সহযোগী। যত বেশি প্ল্যাটফর্ম হবে, তত বেশি নাটক হবে। আর যত বেশি নাটক হবে, ভালো নাটক তৈরির সম্ভাবনাও বেড়ে যাবে। তাই ব্যক্তিগতভাবে আমার চাওয়া, বেশি বেশি নাটক তৈরি হোক।’

বিজ্ঞাপন
default-image

‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ নাটকটি বানিয়ে জনপ্রিয়তা পেয়েছেন কাজল আরেফীন। তিনি এবারের ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে বানিয়েছেন লতা অডিও এবং ফিমেল নামের দুটি নাটক। এই পরিচালক বলেন, ‘দুই মেরুর দুটি কাজ করলাম। একটা ২০ বছর আগের গল্প। আরেকটা একেবারে অন্য রকম। প্রেম, ভালোবাসা মানে শুধু তরুণ–তরুণীর কিংবা স্বামী–স্ত্রীর প্রেম নয়। একাকী থাকা তরুণ-তরুণীদের জীবনেও নানাভাবে প্রেম আসে। সেই চিন্তা থেকেই ফিমেল কাজটি করা।’

default-image

টেলিভিশন চ্যানেলের পাশাপাশি দেশের অনেকগুলো অডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান বানিয়েছে ভালোবাসা দিবসের নাটক। এর মধ্যে সাউন্ডটেক সংগীত যেমন আছে, তেমনি আছে সিডি চয়েস ও সিএমভির মতো প্রতিষ্ঠান। ছয়টি খণ্ডনাটক বানানোর খবর জানিয়েছে সিএমভির স্বত্বাধিকারী শেখ সাহেদ আলী। তিনি বলেন, ‘এবারের সব নাটকের দৃশ্যায়ন অন্যবারের চেয়ে বেশ ইমপ্রুভ হয়েছে। দারুণ কিছু গল্পও পেয়েছি আমরা। পরিচালক আর অভিনয়শিল্পীরাও মনপ্রাণ উজাড় করে কাজ করেছেন।’
কিছু ওয়েব প্ল্যাটফর্মও নির্মাণ করেছে ভালোবাসা দিবসের নাটক। লাইভ টেকনোলজিস বানিয়েছে মাত্র একটি নাটক। ‘মজনু’ নামের সেই নাটকে অভিনয় করেছেন আফরান নিশো ও মেহ্‌জাবীন। সব মিলিয়ে প্রস্তুত টেলিভিশন, প্রস্তুত ইউটিউব। প্রস্তুত ওয়েব প্ল্যাটফর্ম আর দর্শকও।

বিজ্ঞাপন
টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন