default-image

রাতদিন মিলিয়ে বরিশালের কীর্তনখোলা নদীর পাড় ঘেঁষে হয় ‘লাল বাইসাইকেল’ স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমার শুটিং। মা–ছেলের আদর, ভালোবাসা, আবেগের ঘটনা নিয়েই এগিয়েছে এর গল্প। মৌসুমী হামিদ বলেন, ‘এখন সবচেয়ে বেশি চিন্তায় থাকতে হয় সহ-অভিনয়শিল্পী নিয়ে। কারণ, দুজন একসঙ্গে ভালো অভিনয় না করলে গল্প জমে না, মানসিকভাবেও স্বস্তি পাই না। বেশির ভাগ দেখা যায়, নতুন যাঁরা অভিনয় করতে আসেন, সেভাবে অনেকেই তাল মিলিয়ে রি–অ্যাকশন, অভিনয় করতে পারেন না। এভাবে না, একটি ভালো কাজ হয় না। এবার যখন আমাদের গল্পের পরিচালক সুব্রত সঞ্জিব দাদা বললেন, ১১ থেকে ১২ বছরের ছেলে সঙ্গে অভিনয় করতে হবে এবং আমরা দুজনই প্রধান চরিত্রে। তখন চিন্তায় পড়ে গিয়েছিলাম। পরে মনে হলো সাম্য শিশু হলেও অনেক মেধাবী অভিনয়শিল্পী।’

default-image

শুটিংয়ের পুরো সময় একসঙ্গে ছিলেন তাঁরা। গল্পের ছলে সাম্যকে অভিনয় শিখিয়েছেন এই অভিনেত্রী। পরিবারের বিভিন্ন ঘটনায় সাম্য কী অভিব্যক্তি হয়, সেটা বোঝানোর চেষ্টা করেছেন উল্লেখ করে মৌসুমী বলেন, ‘ওর (সাম্য) তো এটা দ্বিতীয় নাটক। কিন্তু আমার মনে হচ্ছিল তাকে বোঝালে পারবে। তখন তাকে বোঝাই, ‘‘তোমার মা বকা দিলে কী করো’’, পরিবারের কোনো দুর্ঘটনা বা ইমোশনাল ঘটনায় সে কী করে, এগুলো ওকে বোঝানোর চেষ্টা করে বলি, “এখন আমি তোমার মা, আমি তোমাকে বকা দিলে কী করবা?’ একসময় সে আমার ছেলে হয়ে অভিনয় করে। মা–ছেলের এই ছোটগল্পে অভিনয় করার সময় একবারও মনে হয়নি, ও আমার ছেলে না। প্রচণ্ড ঝড়বৃষ্টির মধ্য কীর্তনখোলা নদীর পাড়ে শুটিং করেছি। সারাটা ক্ষণ সে আমার সঙ্গে লেগে ছিল।’

default-image

বেশির ভাগ তারকাই অভিনয়ের সময় কান্নার দৃশ্যে গ্লিসারিন ব্যবহার করেন। কিন্তু কিছু শিল্পীর মতো ব্যতিক্রম মৌসুমী হামিদ। তিনি কোনো কিছু ছাড়াই ইমোশনাল দৃশ্যে ক্যামেরার সামনে কাঁদতে পারেন। এবারও সেভাবে কান্নার একাধিক দৃশ্য ছিল। কীভাবে কোনো কিছু ছাড়াই মৌসুমী হামিদ কাঁদতে পারেন, এমনটাই জানতে চান সাম্য। মৌসুমী বলেন, ‘সাম্য অনেক ছোট, কিন্তু তার এই আগ্রহ আমার ভালো লেগেছে। আমি মূলত চরিত্রটির গভীরে গিয়ে সেই চরিত্রের একজন হয়ে যাই। চরিত্রটি হয়ে ফিল করার চেষ্টা করি। সেভাবেই আমার কান্না চলে আসে—সেসব সাম্যকে বোঝাই। পরে আমি অবাক হয়েছি। দেখি, সে গ্লিসারিন ছাড়াই দৃশ্যে কাঁদছে। অবাক হয়েছি। এসব শিশুর আরও বেশি করে সুযোগ দিতে হবে।’ ‘লাল বাইসাইকেল’ স্বল্পদৈর্ঘ্যটির ক্রিয়েটিভ প্রডিউসার অনিমেষ আইচ। রচনা ও পরিচালনা সুব্রত সঞ্জিব। এটি ঈদের সপ্তম দিন দেশ টিভিতে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা, বাংলা টিভিতে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা ও এশিয়ান টিভিতে ৮টায় প্রচারিত হবে। এদিকে দুপুর সাড়ে ১২টায় এটি প্রচার হয়েছে দীপ্ত টিভিতে। এসএ টিভিতে বিকেল সাড়ে ৩টায় প্রচার হয়।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন