বুফে টেবিল থেকে খাবার নিয়ে ফেরার পথে খাবারসহ আমি ফ্লোরে পড়ে যাই, স্মৃতিচারণায় মেহজাবীন

মেহজাবীন চৌধুরী। ছবি: সংগৃহীত

সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে পারফর্ম করতে গিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয় চিত্রনায়ক নিরব ও চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসকে। পারফর্মের একপর্যায়ে অপুকে কোলে ওঠাতে গিয়ে ‘ব্যর্থ’ হন নিরব। ফলাফল, স্টেজেই পড়ে যান অপু। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ ঘটনার রেশ না কাটতেই এবার নিজেই কতবার পড়ে গেছেন, সেই কথা নিজ থেকেই ভক্তদের জানালেন অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী।

এই সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মেহজাবীনফেসবুকে লিখেছেন, ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ার সময় একবার পড়ে গিয়েছিলেন। তখন তিনি অনেক ছোট ছিলেন। কিছুটা দুষ্টুমিষ্টি মেয়ে হিসেবেই ক্লাসে পরিচিত ছিলেন। এই প্রসঙ্গে তিনি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘ক্লাস সিক্সে ক্লাসরুমে চেয়ার দিয়ে দোল খাওয়ার চেষ্টা করতে করতে পড়ে গিয়েছিলাম। ৪০-৫০ জন ক্লাসমেটসহ টিচার, সবাই হাঁ করে তাকিয়ে ছিল আমার দিকে।’

মেহজাবীন চৌধুরী। ছবি: সংগৃহীত

দ্বিতীয়বারের মতো পড়ে যাওয়ার ঘটনায় বেশ চমকে গিয়েছিলেন এই অভিনেত্রী। সেবার আর স্কুলে নয়, রীতিমতো একটি নামকরা ফাইভ স্টার হোটেলে। সেই ঘটনা প্রসঙ্গে মেহজাবীন লিখেছেন, ‘একটি ফাইভ স্টার হোটেলের রেস্টুরেন্টে বুফে খাচ্ছিলাম। আশপাশে কম করে হলেও ২০০ নানা শ্রেণির মানুষ ছিল। বুফের টেবিল থেকে খাবার নিয়ে নিজের টেবিলে ফেরার পথে খাবারসহ আমি ফ্লোরে পড়ে যাই।’

শেষ ঘটনাটি বেশ মারাত্মক ছিল। মেহজাবীনের কথায় একেবারে ভয়ংকর ছিল ঘটনাটি। হাতে থাকা কফি একেবারে তাঁর গায়ে পড়েছিল।

২ / ১২
মেহজাবীন চৌধুরী। ছবি: সংগৃহীত

সিঁড়ি থেকে নামতে গিয়ে পরে শরীরেও প্রচণ্ড ব্যথা পেয়েছিলেন। মেহজাবীন সেই ঘটনা প্রসঙ্গে লিখেছেন, ‘এবার ছিল ভয়ংকর ঘটনা। শুটিং করছিলাম। এক হাতে মোবাইল ফোন, আরেক হাতে কফি, সিঁড়ি থেকে নামছিলাম ফোনে টেক্স করতে করতে। নামতে গিয়ে করলাম স্লিপ। পড়ে গেলাম, কোমরে প্রচণ্ড ব্যথা পেলাম। গরম কফি চাইলে অন্য কোথাও পড়তে পারত, কিন্তু পড়ল আমার শরীরে। সেদিনের পর থেকে সিঁড়ি দিয়ে নামার সময় টেক্সিং করব না, কসম কাটলাম।’

মেহজাবীন চৌধুরী। ছবি: সংগৃহীত

সর্বশেষ ভক্তদের সঙ্গে মজা করে এই অভিনেত্রী লিখেছেন, ‘সবচেয়ে বেশি যেটায় পড়ি সেটা হলো “ঝামেলা”। প্রায় প্রতিদিনই পড়ি। আপনারা এবার মনে করার চেষ্টা করুন। জীবনে কতবার পড়ে গিয়েছিলেন। হয়তো অনেক ঘটনাই মনে পড়বে।’

আরও পড়ুন