এদিকে মেসির উদ্দেশে রোনালদোর এমন বার্তার পর মেসি–সমর্থকেরা খেপে আছেন। অনেকে আবার কিছুটা ভীতও। প্রবাদ যাতে সত্যি হয়ে না যায়, মানে এগিয়ে যাওয়ায় যাতে বাঘ মেসিকে সত্যিই খেয়ে না ফেলে, সে উদ্দেশ্যে মেসির কট্টর বাংলাদেশি সমর্থকদের মধ্য থেকে ১০০ জনকে নিয়ে এক বিশেষ ‘বাঘমারা’ দল গঠন করা হয়েছে। এই দল নিয়মিত বাঘ মারার প্রশিক্ষণ দিয়ে যাচ্ছে, যাদের প্রধান কাজ হচ্ছে মেসিকে খেতে আসা বাঘকে একনিমেষেই মেরে ফেলা। ‘বাঘমারা’ দলের নেতা লিওনেল সামচু বলেন, ‘আমরা সবাই ট্রেনিংপ্রাপ্ত লোক। মেসি শুধু একবার “বাঘ” বলে চিৎকার দিলেই হলো। বাকিটা আমাদের কাজ। দেখি, ব্যাটা রোনালদোর ফাউল প্রবাদ কীভাবে সত্য হয়! আমাদের ভুলে গেলে চলবে না যে সব প্রবাদ হয় না সত্যি, বলেছেন মিঠুন চকোত্তি!’

মেসির এগিয়ে যাওয়া এবং পিছিয়ে গিয়ে রোনালদোর প্রবাদের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়াকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশে মেসি-রোনালদোর সমর্থকদের মধ্যে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে। মেসিকে বাঁচাতে ‘বাঘমারা’ দলের উত্থান দেখে বাঘকে মেসির মুখোমুখি করতে ১০০ জন রোনালদো-সমর্থক গঠন করেছেন ‘বাঘতাড়া’ দল। এই দলের কাজ হচ্ছে দেশ ও দেশের বাইরের আনাচকানাচে লুকিয়ে থাকা বাঘগুলো তাড়িয়ে মেসির বাসার পাশে নিয়ে যাওয়া। এই দলের নেতা ক্রিস্টিয়ানো কাজল বলেন, ‘রোনালদো আমাদের বস। বস বলছেন, আগে গেলে বাঘে খাবে। দেখি, বাঘ না খায় কীভাবে! দুনিয়ার সব বাঘ মেসি ভাইয়ের বাসার পাশে পাঠানোর ব্যবস্থা করতেছি। রাস্তাঘাটে বিভিন্ন সময়ে ছ্যাঁচড়া চোরদের তাড়া করে ধরা সফল লোকদের নিয়ে আমাদের এই দল গঠিত; বাঘ—এ আর এমন কী! সব প্রবাদ হবে সত্যি, বলেছেন মিঠুন চকোত্তি!’

default-image

এদিকে রোনালদোর এমন বার্তায় খেপে গেছেন লিওনেল মেসি। ইমোতে রোনালদোকে ফোন করে বসেন তিনি। ফোন ধরে ‘ডেটা নাই’ বলে কেটে দেন রোনালদো। এরপর মেসেঞ্জারে ফ্রিতে ফোন দিয়ে রোনালদোর উদ্দেশে মেসি বলেন, ‘আমারে বাঘে খাওয়ার দোয়া করস ক্যান? আরে ব্যাটা, এসব বাঘ-টাঘ গোনার টাইম নাই আমার। আর পেছনে বসে টাকা কামানোর চিন্তা করতেছস? দুদকের কাছে তোর নামে অভিযোগ জানামু। যখন এসব টাকার উৎস দেখাতে ব্যর্থ হবি, তখন বুঝবি মজা। বোঝো নাই ব্যাপারটা? হা হা হা!’

একটু থামুন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন