default-image

চিড়িয়াখানায় পশুপাখি দেখতে দেখতে গরিলার ডেরায় পড়ে যায় তিন বছরের এক শিশু। নিজের ডেরায় শিশুটিকে দেখে টানাহেঁচড়া শুরু করে দেয় গরিলাটি। এমন টানাহেঁচড়া চলে ১০ মিনিট। কোনোভাবেই বাগে আনা যাচ্ছিল না বিশাল প্রাণীটিকে। বাধ্য হয়ে শিশুটিকে বাঁচাতে ওই গরিলাকে গুলি করে হত্যা করে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। পরে শিশুটিকে হাসপাতালে পাঠানো হয় এবং সুস্থও হয়ে ওঠে। এই দুর্ঘটনা ঘটে ২০১৬ সালের ২৮ মে যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইও অঙ্গরাজ্যের সিনসিনাতি চিড়িয়াখানায়।

সে সময় দ্য টেলিগ্রাফের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সেদিন শিশুটি তার অভিভাবকের সঙ্গে চিড়িয়াখানায় গিয়েছিল। বিকেল চারটার দিকে সে হামাগুড়ি দিতে দিতে ১০ ফুট নিচে গরিলার ডেরায় থাকা পানির মধ্যে পড়ে যায়। ১৮১ কেজি ওজনের ১৭ বছর বয়সী হারাম্বে নামের গরিলাটি তখন শিশুটিকে ধরে টানাহেঁচড়া শুরু করে। ১০ মিনিট চেষ্টা করেও গরিলার হাত থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা যাচ্ছিল না। পরে বাধ্য হয়ে চিড়িয়াখানার বিপজ্জনক প্রাণী নিয়ন্ত্রণকারী দলের সদস্যরা গরিলাটিকে গুলি করে শিশুটিকে উদ্ধার করে সিনসিনাতি চিলড্রেনস হাসপাতাল মেডিকেল সেন্টারে পাঠায়।

এ ব্যাপারে সিনসিনাতি চিড়িয়াখানার পরিচালক থানে মায়নার্ড বলেছিলেন, শিশুটির জীবন বাঁচাতেই বিপজ্জনক প্রাণী নিয়ন্ত্রণকারী দলের সদস্যরা গরিলাটিকে গুলি করেন। ওই চিড়িয়াখানায় গরিলাকে গুলি করে হত্যার ঘটনা সেটাই ছিল প্রথম। পরিচালক দিনটিকে ‘ভীষণ বেদনাদায়ক’ বলে অভিহিত করেছিলেন।

default-image

ওই দুর্ঘটনার পর থেকে হারাম্বে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তুমুল আলোচনা ও আগ্রহের বিষয় হয়ে ওঠে। গুলি করে হত্যা করার দৃশ্যটিও হয় ভাইরাল। অনেকেই চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের কঠোর সমালোচনা করেন। আর ঠিক পরের বছরই আলোচিত হারাম্বের মতো দেখতে এক টুকরা চিটোহ ব্র্যান্ডের চিপস পেয়ে নাম না জানা একজন ইবে–তে নিলামে তোলেন। ইবে–তে বিক্রয়কারীর আইডির নাম ছিল ‘ভ্যালুস্ট্যাম্পসইনক’।

নিলামে ১৩২ ডাকের পর বেলা ৩টা ৪৫ মিনিটে বিক্রি হয়ে যায় চিপসের টুকরাটি। এবং সেটির দাম ওঠে প্রায় ৮৫ লাখ টাকা! ইবে কর্তৃপক্ষ পরে নিশ্চিত করে, ‘মহামূল্যবান’ চিপসের টুকরাটি বিক্রি হয়েছে ক্যালিফোর্নিয়ার বারব্যাংক থেকে। তবে কে বেঁচল, কে কিনল—তা এখনও অজানা।

দেখতে পারেন দুর্ঘটনাটি নিয়ে একটি ভিডিও প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন
একটু থামুন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন