বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সৈয়দ ঘণ্টন এবার নিজেই লজ্জিত হলেন। বরকত সাহেবের পীড়াপীড়িতে তার ফ্ল্যাটে গেলেন। দুরকম পিঠা আর সঙ্গে পায়েসও আছে। বরকত সাহেবের স্ত্রী ডাইনিং টেবিলে সেগুলো সাজিয়ে রেখে অতিথি আপ্যায়নের অপেক্ষা করছিলেন। ঘণ্টন সাহেব ভোজনপ্রিয় লোক নন। তবে পিঠা-পায়েস পরিবেশনের ভঙ্গি তাকে মুগ্ধ করল। বরকত সাহেব বিনয়ের সঙ্গে বললেন, ‘তখন গরম থেকে ঘেমে গিয়েছিলাম। বেশিক্ষণ নিচ থেকে দাঁড়িয়ে আপনার সঙ্গে কথা বলতে পারিনি।’

জবাবে সৈয়দ ঘণ্টন বললেন, ‘না, না, রোদের কারণে আমিও তো ছাদ থেকে নেমে এলাম।...তবে গরম থেকে ঘাম হয়, এটা আপনাকে কে বলল? আমি তো জানি, ঘাম থেকে গরম হয়েছে।’

সৈয়দ ঘণ্টনের কথার দ্বিতীয় অংশ বেশ রহস্যময় মনে হলো বরকত সাহেবের কাছে। তিনি ঘণ্টন সাহেবের চোখের দিকে তাকিয়ে নিচু গলায় টেনে টেনে বললেন, ‘আপনার কথা ঠিক বুঝতে পারছি না।’

default-image

‘বলছিলাম, গরম থেকে ঘাম হয়েছে? নাকি ঘাম থেকে গরম হয়েছে?’ সরাসরি প্রশ্ন রাখেন সৈয়দ ঘণ্টন।

আমতা আমতা করে বরকত সাহেব বললেন, ‘গরমের কারণেই তো ঘাম হয় জানি!’ এরপর হঠাৎ তার মনে হলো, সৈয়দ ঘণ্টন শব্দের উৎস নিয়ে পড়াশোনা করেন। তাই দ্রুত নিজের কথার সঙ্গে যোগ করলেন, ‘আপনি কি শব্দের উৎপত্তির কথা বলছেন?’

এবার সৈয়দ ঘণ্টন মাথা ঝাঁকিয়ে বললেন, ‘হ্যাঁ, শব্দের উৎসের কথা বলছি। সংস্কৃত “ঘর্ম” আর বাংলা “গরম” শব্দের একই অর্থ। ঘর্ম থেকেই বাংলা গরম শব্দটি এসেছে। ইংরেজি Warm এবং জার্মান Thermos শব্দও একই অর্থ প্রকাশ করে। ঘর্ম, গরম, Warm, Thermos এসব শব্দের মধ্যে ধ্বনিগত মিলও অনেক। তাই বলা হয়ে থাকে, ভারতের ভাষা আর ইউরোপের ভাষা একই বংশ থেকে এসেছে। এর নাম ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাবংশ।’

‘ঘর্ম, গরম শব্দের একই অর্থ?’ বরকত সাহেব খানিক দ্বিধার মধ্যে পড়ে যান, ‘আমি তো জানি ঘর্ম বা ঘাম মানে গরমের কারণে শরীর থেকে যে পানি বের হয়।’

সৈয়দ ঘণ্টন মৃদু হেসে বললেন, ‘ঘাম থেকে ঘামাচি হয়েছে, কিংবা বলা যায় ঘর্ম থেকে ঘর্মচর্চিকা হয়েছে। তবে ঘামাচির ঘাম কিংবা ঘর্মচর্চিকার ঘর্মের মূল অর্থ গরম।’

‘সংস্কৃতে ঘর্ম মানে গরম। আর গরমের কারণে শরীর থেকে যে পানি বের হয়, তাকে বলে “স্বেদ”। সংস্কৃত স্বেদ আর ইংরেজি Sweat শব্দের মধ্যেও কিন্তু ধ্বনিগত মিল আছে।’

‘তাহলে পুরো ব্যাপারটা কী দাঁড়াল?’ বরকত সাহেব বিষয়টা সহজ করে বুঝে নিতে চাইলেন।

‘ব্যাপার দাঁড়াল এই, সংস্কৃত ঘর্ম থেকে বাংলায় ঘাম শব্দটি এসেছে। কিন্তু মূলে ঘর্ম বা ঘাম শব্দের অর্থ গরম। আমরা অবশ্য ঘর্ম আর ঘাম দুটি শব্দই স্বেদ অর্থে ব্যবহার করি।’

এতক্ষণ বরকত সাহেবের স্ত্রী চুপ করে শুনছিলেন। সুযোগ বুঝে তিনি বললেন, ‘এই ঘাম থেকেই ঘামাচি হয়েছে; তাই না, ভাই?’

সৈয়দ ঘণ্টন মৃদু হেসে বললেন, ‘ঘাম থেকে ঘামাচি হয়েছে, কিংবা বলা যায় ঘর্ম থেকে ঘর্মচর্চিকা হয়েছে। তবে ঘামাচির ঘাম কিংবা ঘর্মচর্চিকার ঘর্মের মূল অর্থ গরম।’

‘তাহলে কি আমরা ভুল অর্থে ঘাম বা ঘর্ম শব্দ ব্যবহার করছি?’ বরকত সাহেব দ্বিধা নিয়ে জানতে চান।

‘মোটেই না।’ সৈয়দ ঘণ্টন হেসে বললেন, ‘এক ভাষার শব্দ আরেক ভাষায় এ রকম অর্থবৈচিত্র্য নিয়ে ঢুকতে পারে।’

‘ঘাম নিয়ে অনেক হয়েছে, ভাই!’ মিসেস বরকত পিঠা-পায়েসের বাটি দুটি এগিয়ে দিলেন, ‘এবার শুরু করুন তো!’

তারিক মনজুর: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক

একটু থামুন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন