বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ফ্লানেল আরামদায়ক কাপড়, যা হালকা ঠান্ডা আবহাওয়া এবং শীতকালে পরার উপযোগী ও জনপ্রিয়ও বটে। মূলত ওভেন ডাই কাপড়কে ব্রাশ করে ফ্লাপি বা তুলতুলে করে তৈরি হয় ফ্লানেল। এই কাপড় তৈরির পদ্ধতি ও ধরন অনুযায়ী মূলত পাঁচ ধরনের। যেমন বেবি ফ্লানেল, কটন (সুতি) ফ্লানেল, সিলন ফ্লানেল, ডায়াপার ফ্লানেল ও ভেজিটেবল ফ্লানেল।

default-image

বলা যায়, পুরোনো বা রেট্রো ফ্যাশনের হাত ধরে ফ্লানেল কাপড়ের পোশাক আবার ফিরেছে চলতি ধারায়। বিশ্ব ফ্যাশনে এখন রেট্রো, অর্থাৎ গত শতাব্দীর আশি ও নব্বইয়ের দশকে ফ্যাশনধারা আবার নতুনভাবে ফিরে এসেছে। আর সে সময় পশ্চিমা বিশ্বে জনপ্রিয়তার শীর্ষে ছিল ফ্লানেল কাপড়ে তৈরি নানা ধরনের পোশাক। এমনকি সে সময়ের দর্শকপ্রিয় হলিউড সিনেমায় এবং মঞ্চমাতানো রকস্টারদের পরনে দেখা যেত ফ্লানেলের ওভারকোট, পুলওভার ও শার্ট।

বর্তমান সময়ে তরুণ-তরুণী—দুই ক্ষেত্রেই ফ্লানেল শার্ট জনপ্রিয়তা পেয়েছ, যা বোতাম আটকে এককভাবে পরিধান করা থেকে শুরু করে টি-শার্টের ওপরে কিংবা সোয়েটার, ভেস্ট বা জ্যাকেটের নিচে পরে তৈরি করা যায় আলাদা আলাদা স্টাইল।

default-image

হেমন্তের ক্যাজুয়াল ফ্যাশেনে ফ্লানেল শার্ট যোগ করতে পারে বাড়তি মাত্রা। কেননা, এর উজ্জ্বল রঙে রয়েছে বিশেষ আবেদন। দেশীয় ফ্যাশন হাউস গ্রামীণ ইউনিক্লো, সেইলর, রাইজ, একস্ট্যাসি, টুয়েলভ ক্লদিংসহ আরও কিছু প্রতিষ্ঠানের দোকানে পাওয়া যাবে ফ্লানেলের পোশাক। এর মধ্যে ছেলেদের জন্য শার্ট এবং মেয়েদের জন্য রয়েছে লম্বা টিউটিক ও শার্ট। এ ছাড়া বাজারে থান কাপড় হিসেবেও পাওয়া যায় ফ্লানেল কাপড়, যা দিয়ে দরজির দোকান থেকে তৈরি করে নেওয়া যাবে পছন্দের পোশাক।

লাইফস্টাইল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন