বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

তোমাকে অনেক ভালোবাসি—এ কথা কখনো বলা হয়নি। অথচ তোমার জন্যই তো আমার জন্ম, বেড়ে ওঠা। কোনো প্রতিযোগিতায় সাফল্য এলে তাতে তোমার অবদান থাকে সবচেয়ে বেশি। খোঁজখবর নেওয়া, আমাকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নিয়ে যাওয়া, সারা দিনের জন্য খাবারের বন্দোবস্ত করা, আমার সবকিছু গুছিয়ে দেওয়া—সব দায়িত্ব তুমি নিয়ে নাও। আমার প্রয়োজনগুলো চাওয়ার আগেই তুমি বুঝে ফেলো। গুরুত্ব দিতে বলো সমানভাবে। বিভিন্ন অলিম্পিয়াডে, প্রতিযোগিতায় যে পুরস্কার পাই, তা তোমার জন্যই। এ বছর গণিত অলিম্পিয়াডে জাতীয় পর্যায়ে বিজয়ী হয়েছি, তা-ও তোমার অবদান।

তোমাকে ধন্যবাদ মা। আমাকে ভালো রাখার জন্য, পথ দেখানোর জন্য, ভালোবাসার জন্য।

গল্পের বই পড়ার শখটাও তোমারই তৈরি করে দেওয়া। তুমি নিজেও তো বইয়ের পোকা ছিলে! আমার বয়স যখন এক বছরও হয়নি, সেই তখন থেকে আমাকে নিয়ে বইমেলায় গিয়েছ, বই কিনে দিয়েছ। পড়তে পারতাম না, কিন্তু বইয়ের সঙ্গে সম্পর্কটা তো তৈরি হচ্ছিল সেই তখন থেকেই। বইয়ের মাধ্যমে বিশ্বের কতশত না দেখা জায়গায় ঘুরে বেরিয়েছি। ৮০ দিনে বিশ্বভ্রমণ করেছি, সাগরতলে বা মিসর রহস্যে ডুব দিয়েছি, চাঁদের পাহাড়ে শংকরের সঙ্গে অন্ধকারাচ্ছন্ন আফ্রিকাকে জেনেছি, হ্যারি পটারের সঙ্গে ঘুরেছি জাদুর দুনিয়ায়, রকি বিচের পাশা স্যালভিজ ইয়ার্ডে কিশোর, মুসা, রবিনের সঙ্গে কত রহস্য সমাধান করে আনন্দে আত্মহারা হয়েছি!

বিজ্ঞান কল্পগল্প পড়তে পড়তে, কৃষ্ণগহ্বর কিংবা সময় পরিভ্রমণ নিয়ে ভাবতে ভাবতে আমার আগ্রহ বেড়েছে বিজ্ঞানে। ছুটির দিনে সময়-সুযোগ হলে তুমিই তো আমাকে ঘুরতে নিয়ে গেছ। চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত তুমিই ছিলে আমার ‘হোম টিউটর’। এখন সব পড়াতে না পারলেও ক্লাসের পড়া হলো কি না, পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছি কি না, সব খোঁজ তুমিই রাখো।

কোনো প্রতিযোগিতায় বিফল হলেও উৎসাহ দাও। জোর করে পড়তে বসাও, আবার আবৃত্তিটাকেও গুরুত্ব দিতে বলো সমানভাবে। বিভিন্ন অলিম্পিয়াডে, প্রতিযোগিতায় যে পুরস্কার পাই, তা তোমার জন্যই। এ বছর গণিত অলিম্পিয়াডে জাতীয় পর্যায়ে বিজয়ী হয়েছি, তা-ও তোমার অবদান।

তোমাকে ধন্যবাদ মা। আমাকে ভালো রাখার জন্য, পথ দেখানোর জন্য, ভালোবাসার জন্য।

জীবনযাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন