বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

রঘুনাথের বাবা–দাদারা ব্যবসা করতেন জাহাজে আর নৌকায় চড়ে। টাঙ্গাইল থেকে ঢাকা আর কলকাতায় তাঁতের শাড়ি আর কাপড় নিয়ে যেতেন। বাহাদুরাবাদ ঘাট থেকে জাহাজে চড়ে কলকাতার বাজার ধরতেন। আর এলাসিন ঘাট থেকে ধলেশ্বরী নদীতে জাহাজে বা নৌকায় চড়ে মাল নিয়ে যেতেন ঢাকায়। মাঝেমধ্যে বাই রোডেও যেতেন। আর এখন, বিশেষ করে করোনা মহামারির প্রথম ধাক্কার পর থেকে রঘুনাথের ব্যবসা ঢুকে গেছে হোয়াটসঅ্যাপ আর ইমোর ভেতর। নতুন কোনো শাড়ি বা থ্রি–পিসের কালেকশন এলে ছবি তুলে পাঠিয়ে দেন। পছন্দ হলে অর্ডার আসে। তারপর পাঠিয়ে দেন সেই ঠিকানায়। এভাবেই চলছে এখনকার ব্যবসা।

কেন এই এলাকায় ভালো তাঁত হয়? উত্তরে রঘুনাথ বলেন, ‘যমুনার পানি, আর্দ্রতা, আবহাওয়া...। যে পানিতে আয়রন, তাতে তাঁতের সুতা ধুলে সেই সুতা সুন্দর হয় না। যমুনার পানিতে আয়রন নেই। এই স্রোতের পানিতে তাঁতের সুতা খুব ভালো হয়। রং-ও পাকা থাকে।’

default-image

আপনি যদি কখনো টাঙ্গাইলে গিয়ে খুঁজে খুঁজে যজ্ঞেশ্বর অ্যান্ড কোং–এ যান, দেখবেন ক্যাশিয়ারের পেছনের দেয়ালে টাঙানো আছে দুটি ছবি। একটিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুরস্কার তুলে দিচ্ছেন। আরেকটিতে পুরস্কার তুলে দিচ্ছেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি।

default-image

শোনা যাক প্রথম ছবিটার গল্প রঘুনাথের মুখেই, ‘ছবিটা ২০১৬ সালে তোলা। তখন টাঙ্গাইলের এমপি ছানোয়ার হোসেন প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের এখানকার একটা তাঁতের শাড়ি উপহার দেন। সেই শাড়ি পরেই প্রধানমন্ত্রী সংসদে জাতীয় বাজেট উপস্থাপন করেছিলেন। এরপর তিনি শাড়ির বুননের প্রশংসা করে ওই তাঁতিকে পুরস্কৃত করতে চান। আমি তো জীবনে ছোটখাটো কিছু পুরস্কার পাইছি। তাই আমার ছেলে খোকন বসাক আর যে তাঁতি শাড়িটা বানাইছে, হুমায়ূন কবির, ওদের দুজনকে ঢাকা পাঠাই। ওরাই প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে গণভবনে পুরস্কারটা নেয়। সেই ছবি এটি।’

পরের ছবিতে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে যাঁকে পুরস্কার নিতে দেখা যাচ্ছে, তিনি রঘুনাথের ছোট ভাই। তিনি কলকাতায় তাঁদের পারিবারিক তাঁতের ব্যবসা পরিচালনা করেন। সেখানেই ভালো কাজের জন্য তাঁকে এই স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

default-image

রঘুনাথ বলেন, করোনার বিধিনিষেধের আগে যত তাঁতি এই ব্যবসায় যুক্ত ছিলেন, এখন আছে তার তিন ভাগের দুই ভাগ। মহামারিসহ নানা কারণে এখন তাঁতশিল্পে চলছে মন্দা। অথচ এই এলাকার মানুষের প্রধান পেশাই এটি। যখন তাঁতশিল্পের বাজার ভালো চলে, তখন পাথরাইলের বাজারে মাছের দাম বেড়ে যায়। বেড়ে যায় মিষ্টির বিক্রি। এলাকার বাজার চাঙা হয়ে ওঠে।

default-image

তাঁতশিল্পকে আবারও চাঙা করার উপায়ও জানালেন রঘুনাথ। তিনি বলেন, গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে মিডিয়া। মিডিয়া তাঁতশিল্পের প্রচার প্রসারকে অনেকটা দূর এগিয়ে নিতে পারে। আর সরকার যদি লোন দেওয়ার পাশাপাশি বাজারজাতকরণ আর পৃষ্ঠপোষকতায় সহায়তা করে, তাহলেও খুব ভালো হয় এই শিল্প আর শিল্পীদের। সরকারি, বেসরকারি অফিস–আদালতে যদি শাড়ি পরা উৎসাহিত করা হয়, তাহলেও বেড়ে যাবে শাড়ির কদর। ‘আমি কেবল তাঁতের শাড়ি পরার কথা বলছি না। যেকোনো শাড়ি পড়ুক। বাঙালি নারীদের শাড়ি পরার চল ফিরে আসুক। এটাই আমাদের চাওয়া,’ বলেন রঘুনাথ।

লাইফস্টাইল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন