default-image

যেমন ধারার মোড়া এখন

দেশীয় ধাঁচের অন্দরের জন্য মানানসই মোড়া ব্যবহার করা যায় নানানভাবে, বাড়ির নানান জায়গায়। বাজারে খাটো মোড়া যেমন পাওয়া যায়, তেমনি রয়েছে উঁচু মোড়াও। খাবার টেবিলের সঙ্গে চেয়ারের পরিবর্তে রাখতে পারেন মোড়া। যে ঘরেই রাখুন, অবশ্যই ঘরের অন্যান্য আসবাবের সঙ্গে তা মানানসই হতে হবে। শোবার ঘরের একদিকে মোড়া রাখা যায়। ড্রেসিং টেবিলের সামনে বসার জন্যও রাখতে পারেন মোড়া।

সাধারণ উপকরণে

কাঠের ভিত্তির ওপর দড়ি দিয়ে তৈরি করা মোড়া ব্যবহার করতে পারেন। হস্তশিল্প নির্মাণ প্রতিষ্ঠান প্রকৃতি এনেছে পুনর্ব্যবহারযোগ্য শাড়ির কাপড়ের মোড়া। শাড়ির রং যেমন, তেমনই হবে বসার জায়গাটুকুর রং। কোনোটা গোলাপি, কোনোটা লাল-সাদা, তো কোনোটা বর্ণিল। এ ছাড়া সেখানে রয়েছে পাটের মোড়া। এ ক্ষেত্রে পাটের মূল রং ছাড়াও তামাটে রং পেতে পারেন। পাটের বুননেও রয়েছে বৈচিত্র্য। দুই ধরনের মোড়াতেই ভিত্তিটা কাঠের। কাঠের অংশের রং হতে পারে কালো, হালকা বাদামি কিংবা গাঢ় বাদামি।

default-image

সাদামাটায় বৈচিত্র্য আরও

কিউরিয়াস লাইফস্টাইলের বিপণন নির্বাহী তাসনুভা ঈশা জানালেন, কাপড়ের মোড়া এনেছেন তাঁরাও। শাড়ির কাপড় তো বটেই, ডেনিম কাপড়ও ব্যবহার করা হয়েছে তাঁদের মোড়ায়। কাঠের ভিত্তির এ মোড়া যেমন মানাবে দেশীয় অন্দরে, তেমনি মানাবে আধুনিক ধারার সঙ্গেও। এ ছাড়া রয়েছে বিশেষ একটি বিষয়ে তৈরি মোড়া ‘জং পড়া’। এ মোড়াগুলো টিনের তৈরি। জং ধরে যাওয়া সামগ্রীর অন্তর্নিহিত সৌন্দর্য ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এই (আসলে মরিচা না পড়া টিন) মোড়ায়। মোড়ার নকশাও এমন। ওপরে গদিওয়ালা এই মোড়ার ভেতর আবার কিছু জিনিসপত্র ঢুকিয়েও রাখা যায়। দেশীয় অন্দরে মানানসই এ মোড়া।

default-image

ব্যবহারের বিস্তৃতি

পাশ্চাত্যের মোড়া অট্টোম্যান সিট। বড় আকারের বসার ঘরের জন্য উপযোগী, আধুনিক ধাঁচের অন্দরে মানানসই। গদিওয়ালা এ মোড়ার ডিজাইনে রয়েছে আভিজাত্য। এমনটাই জানালেন মুমানা ইসলাম। এ মোড়া আকারে একটু বড়সড়, তবে উচ্চতা খুব বেশি নয়। আয়েশ করে পা রাখার জন্যও সোফার কাছে রাখতে পারেন এ মোড়া।

আবার বাড়ির বারান্দা কিংবা ছাদে বাগান থাকলে এক পেয়ালা ধূমায়িত কফি কিংবা একটা বই হাতে নিয়ে সেখানে বসতে ইচ্ছা হতেই পারে। এই শহুরে বাগানেও কিন্তু রাখা যায় মোড়া। মোড়ার সামনে থাকতে পারে নিচু টেবিল। যেখানে মোড়া রাখলে জলে ভেজার ভয় থাকবে, সেখানে ব্যবহারের জন্য প্লাস্টিকের মোড়া বেছে নিতে পারেন। ছাদ কিংবা রান্নাঘরের ক্ষেত্রেই যেমন। আবার প্লাস্টিকের মোড়া শিশুর ঘরেরও উপযোগী। রট আয়রনের মোড়া ছাদ এবং বারান্দার জন্য ভালো।

কিনতে চাইলে

বাজারে নানান ধরনের মোড়া কিনতে পাওয়া যায়। ‘প্রকৃতি’র মোড়াগুলো পাবেন অনলাইনে দারাজ, টুকিটাকি ডট এক্সওয়াইজেড কিংবা বেশিদেশি ডট কম ই–কমার্স সাইটে। এ ছাড়া ফেসবুক পেজ প্রকৃতি বাংলাদেশ কিংবা প্রকৃতির আসাদগেট শাখা থেকে সরাসরি কেনার সুযোগ রয়েছে। কিউরিয়াস লাইফস্টাইলের শাখা রয়েছে ঢাকার বনানী, মিরপুর আর ধানমন্ডিতে। তাদের ফেসবুক পেজ এবং ওয়েবসাইটে গিয়েও ঘরে বসে সারতে পারবেন মোড়া কেনার কাজটা। প্রতিটি মোড়ার দাম পড়বে ১০০০-২১০০ টাকা।

জীবনযাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন