আমার বাবা হাসান কবির স্থানীয় প্রকৌশল অধিদপ্তরের একজন প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। বাবার কাজের সুবাদে দেশের নানা প্রান্ত ঘুরেছি। রাস্তাঘাট, সেতু, বাজার, স্কুল—এসবের নির্মাণকাজ দেখা ছিল খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। ছোটবেলায় এগুলোর গুরুত্ব বুঝতাম না। যত বড় হয়েছি, বুঝেছি একটা রাস্তা কীভাবে গ্রামের সব মানুষের জীবন বদলে দিতে পারে। একটা সেতু কীভাবে দুটি এলাকাকে যুক্ত করে। একটা খাল পুনঃখননের পর সেখানে যখন পানি আসে, একজন কৃষকের কাছে সেটা যে কত গুরুত্বপূর্ণ, পাঠ্যবই আমাকে সেটা শেখাতে পারেনি। একটা স্কুল কীভাবে একটা সম্প্রদায়কে বদলে দেয়, নিজের চোখে না দেখলে বোঝা সম্ভব নয়।

আমি এখন কাজ করছি হাওর অঞ্চলে। এখানে কিছু গ্রাম ছয় মাস পানির নিচে থাকত, আর গ্রামের বাসিন্দারা বাস্তুচ্যুত হয়ে আশ্রয় নিত আশপাশে। কিছু গ্রাম উঁচু করার ফলে একটা গ্রামের সব কটি পরিবার সারা বছর এখন নিজের ঘরে থাকতে পারছে। বাবার কাছেই শিখেছি, সততা আর কাজের প্রতি নিষ্ঠা নিয়ে পরিশ্রম করলে মানুষের ভালোবাসা পাওয়া যায়। বাবাকে ছাপিয়ে যেতে হয়তো পারব না। তবু চেষ্টা থাকবে যেন মানুষের জীবনে তাঁর মতো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারি।

জীবনযাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন