১৮৭৮ সালে বিসমার্ক জার্মানিতে সমাজতান্ত্রিক কার্যক্রম নিষিদ্ধ ঘোষণা করলে জেটকিন প্রথমে সুইজারল্যান্ড ও পরে প্যারিসে নির্বাসিত হন। সেখানে আন্তর্জাতিক সমাজতান্ত্রিক সংগঠন গড়ে তুলতে বিশেষ ভূমিকা রাখেন। ১৮৯০ সালে তিনি আবার জার্মানিতে ফিরে এসে যুক্ত হন সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টির পক্ষ থেকে প্রকাশিত নারীদের অধিকারবিষয়ক ডাই গ্লাইসাইট (সমতা) পত্রিকায় সম্পাদক হিসেবে। পত্রিকাটি খুব দ্রুতই হয়ে ওঠে নারীদের অধিকার আন্দোলনের মুখপাত্র। সমাজ ও পরিবারে নারীদের ভঙ্গুর অবস্থান ও নানা বৈষম্য, পুরুষের সমানতালে কাজের অধিকার ও সমান মজুরি, রাজনৈতিক অধিকার, নারীর প্রতি নির্যাতন-নিপীড়ন ইত্যাদি বিষয়ে পত্রিকাটিতে নিয়মিত লেখা প্রকাশ হতে থাকে। ১৯১০ সালে কোপেনহেগেনে আয়োজিত আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলনে জেটকিনসহ অন্যান্য নারী নেত্রীরা নারীদের অধিকার ও মুক্তির লড়াইয়ের প্রতি সম্মান জানাতে বছরের একটি দিন ছুটি রাখার আহ্বান জানান। সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে বর্তমানে সারা বিশ্বে প্রতিবছর ৮ মার্চ নারী দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে যুদ্ধবিরোধী আন্দোলন গড়ে তোলেন জেটকিন। ১৯৩৩ সালে হিটলার জার্মানিতে কমিউনিস্ট পার্টি নিষিদ্ধ করলে জেটকিন মস্কোতে নির্বাসিত হন। সে বছরই ৭৬ বছর বয়সে সেখানে তিনি মারা যান।

আজ ৫ জুলাই, তাঁর জন্মদিন।

জীবনযাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন