বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রোয়ান অ্যাটকিনসনের গ্যারেজের সবচেয়ে দামি এবং ঘটনাবহুল গাড়ি ম্যাকলারেন এফ ১। ব্রিটিশ গাড়ি প্রস্তুতকারক কোম্পানি ম্যাকলারেনের কালেক্টর’স এডিশন ছিল ম্যাকলারেন এফ ১। ১৯৯২ থেকে ১৯৯৮, ছয় বছর মাত্র ১০৬টি গাড়ি তৈরি করে তারা। তাই দাম বা গাড়িটি নিয়ে সাধারণ মানুষের মোহ কমেনি। জগৎখ্যাত সব মানুষের গ্যারেজে শোভা পায় তিন সিটের এ গাড়ি। জে লেনো, ইলন মাস্ক, লুইস হ্যামিল্টন তাঁদের মধ্যে অন্যতম। রোয়ান অ্যাটকিনসনের হাতে এ গাড়ি আসে ১৯৯৭ সালে। সেই সময় ৪ কোটি ৫৭ লাখ টাকা দিয়ে এ গাড়ি হাত করেন তিনি। আর তার এক বছর পরই বিপণন বন্ধ করে দেওয়ায় সেই গাড়ি হয়ে যায় ‘আউট অব মার্কেট’। মূল্য হয়ে যায় আকাশছোঁয়া। আর সেই আকাশছোঁয়া দামের গাড়ি পারতপক্ষে কেউ গ্যারেজ থেকে বেরই করতেন না।

default-image

কিন্তু মিস্টার বিন তো আর যে সে লোক নন। টিভি পর্দায় গাড়ির ওপরে বসে যিনি অ্যাডভেঞ্চারে মেতেছেন, সেই মানুষটা আসল গাড়ি হাতের কাছে পেলে কি গ্যারেজে বসিয়ে রাখবেন? স্টিয়ারিং হুইলের সামনে বসে ঘণ্টায় ২৪০ মাইল গতি তুলেছেন তিনি। ফলও পেয়েছেন। গাড়ি হাতে পাওয়ার দুই বছরের মাথায় প্রথম অ্যাক্সিডেন্টটা করেন। সেবার পেছন থেকে ধাক্কা মেরে বসেছিলেন সামনের গাড়িকে। তাতে শুধু গাড়ির সামনের হুড ভেঙে গিয়েছিল। ম্যাকলারেন কোম্পানির পক্ষ থেকেই সেবার সেই গাড়ি মেরামত করে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এ দুর্ঘটনা ২০১১ সালের দুর্ঘটনার তুলনায় কিছুই নয়।

২০১১ সালে প্রাণ হাতে নিয়ে বেঁচে ফিরেছিলেন তিনি। বৃষ্টিস্নাত রাস্তায় তাঁর গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রায় তিন-চারবার ঘুরে প্রথমে আঘাত হানে গাছে, এরপর সড়কসংকেতে। গাড়ির পেছনের অংশ একেবারে ভেঙে গুঁড়া হয়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গে গাড়িতে আগুন ধরে যায়। সেখান থেকে কোনোমতে বাঁ পাশের দরজা ভেঙে বেরিয়ে আসেন রোয়ান অ্যাটকিনসন। দুর্ঘটনায় নিজের খুব একটা ক্ষতি না হলেও গাড়ির অবস্থা হয় শোচনীয়।

default-image

৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা দিয়ে এক বছর ধরে সেই গাড়ি আবারও আগের মতো করেছেন তিনি। এরপরও প্রায় তিন বছর তাঁর কাছে ছিল সেই ম্যাকলারেন। শেষমেশ ২০১৫ সালে ১৮ বছরের সম্পর্ক চুকিয়ে প্রায় ৮৫ কোটি টাকা দামে একটি প্রাইভেট কোম্পানির কাছে বিক্রি করেন তিনি। সেই সঙ্গে শেষ হয় রোয়ান অ্যাটকিনসনের ম্যাকলারেন এফ ১ অধ্যায়।

লাইফস্টাইল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন