কাগজে না খাতায়

ক্লাস-লেকচার কাগজে তুলবেন, না খাতায় তুলবেন—এ নিয়ে দ্বিধার কিছু নেই। এক খাতায় সব শিক্ষকের লেকচার না তোলাই ভালো। প্রতিটি কোর্সের জন্য আলাদা খাতা তৈরি করতে পারেন। খাতা সঙ্গে রাখা কষ্টকর মনে হলে সাদা কাগজ ব্যবহার করতে পারেন। সাদা কাগজের এক পাশে লিখবেন, অন্য পাশে লিখবেন না। কাগজগুলো পাঞ্চমেশিনে ছিদ্র করে ফাইলে আটকে রাখবেন। কোর্স অনুযায়ী আলাদা ফাইল করবেন।

দুই রঙের কলম

ক্লাসনোট তোলার জন্য দুই রঙের কলম ব্যবহার করতে পারেন। একটি কালো, আরেকটি আপনার পছন্দসই যেকোনো রং। দুই রঙের কালি ব্যবহারের কারণে আলোচ্য বিষয় ও বিবরণ সুন্দর করে লেখা যায়। অনেকে আবার দুইয়ের বেশি রঙের কলম ব্যবহার করেন। কিন্তু এত সব কলম দিয়ে লেকচার তুলতে গেলে বাড়তি সময় নষ্ট হয়। তা ছাড়া পরে এই নোট বুঝতেও সমস্যা হতে পারে। ছবি আঁকার জন্য পেনসিলও সঙ্গে রাখতে পারেন।

বুলেট ও শিরোনাম দিন

ক্লাস লেকচার তোলার সময়, তারিখ, কোর্সের নাম ও শিক্ষকের নাম লিখুন। লেকচারের শুরুতে মূল বিষয়ের শিরোনাম দিন। শিক্ষক যা মুখে বলেন, তার সবকিছুই তোলা সম্ভব হয় না। দরকারও নেই। সাব-টাইটেল ও বুলেট দিয়ে বিষয়গুলো চিহ্নিত করুন। কিছু দরকারি আলোচনাও টুকে রাখতে পারেন। শিক্ষক যা কিছু বোর্ডে লিখবেন, ক্লাসনোটে তার কোনো কিছুই বাদ দেবেন না। এমনকি তিনি কোনো চিত্র বা প্রবাহচিত্র এঁকে দেখালে অবশ্যই তা তুলে রাখবেন। 

মনোযোগী থাকুন

ক্লাসের পুরো সময় অবশ্যই মনোযোগী থাকতে হবে। ভালো হয় যদি সামনের দিকে বসতে পারেন। কারণ, সামনে বসলে শিক্ষকের লেকচার শুনতে সুবিধা হয়। শিক্ষকের সঙ্গে ‘আই কন্টাক্ট’ বা দৃষ্টি বিনিময় হয়। সব সময় সামনে বসে মন দিয়ে লেকচার শোনার অভ্যাস করলে শিক্ষক অবশ্যই আপনাকে আলাদা করে মনে রাখবেন। অধিকাংশ বিষয়ের ক্ষেত্রেই ক্লাসে পূর্ণ মনোযোগ দিলে বাসায় গিয়ে আর খুব বেশি পড়তে হয় না। পরীক্ষার আগেও ক্লাসনোটের দিকে তাকিয়েই পড়াগুলো ঝালাই করে নেওয়া যায়।

কী তুলবেন না

লেকচারের বিষয়টি নিয়ে আগেই পড়াশোনা করার কারণে আপনার মধ্যে কিছু প্রশ্ন তৈরি হবে। এগুলোর সমাধান খুঁজতে হবে শিক্ষকের ক্লাস-লেকচারের মধ্যে। শিক্ষকের লেকচারের যে বিষয়গুলো আপনি আগেই বইপত্রে বা অন্য মাধ্যমে পেয়েছেন, সেগুলো ক্লাসনোটে তোলার দরকার নেই। বরং যেগুলো আপনার কাছে নতুন, সেগুলো তুলবেন। তা ছাড়া শিক্ষক যদি প্রজেক্টরে স্লাইড দেখিয়ে কোনো আলোচনা করেন এবং পরে সেই স্লাইড সরবরাহ করেন, সেগুলোও তোলার দরকার নেই।

কী করা যায়, কী যায় না

বোর্ডের লেখা মোবাইলের ক্যামেরায় তোলা ঠিক না। এমনকি প্রজেক্টরে শিক্ষক কোনো কিছু উপস্থাপন করলে সেটিও মোবাইলের ক্যামেরায় তোলা যাবে না। হাতে লিখেই ক্লাসনোট তুলতে হবে। শিক্ষক যখন লেকচার দিতে থাকেন, তার মাঝখানে প্রশ্ন করা ঠিক নয়। ক্লাসের শেষ দিকে বা ক্লাসের পরে সুবিধাজনক সময়ে প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো নিয়ে শিক্ষকের সঙ্গে আলাপ করতে পারেন। শিক্ষকের মনোভাব বুঝে কী করবেন আর কী করবেন না, নির্ধারণ করুন।

শেষ কথা

ক্লাসের পরে যত দ্রুত সম্ভব ওই বিষয়ে বিস্তারিত পড়াশোনা করে ফেলুন। বেশি দেরি করে ফেললে টপিকটি আয়ত্তে আনা কঠিন হয়ে পড়তে পারে। বিস্তারিত পড়াশোনার জন্য ক্লাসনোট দারুণ সাহায্য করে। ক্লাসনোট দেখে বোঝা যায়, পড়ার সময়ে প্রয়োজনীয় কোনো বিষয় বাদ পড়ছে কি না। বিস্তারিত পাঠের সময়ে প্রয়োজনীয় আলোচনা আপনি একটি খাতায় লিখে রাখতে পারেন।