হাতেখড়ি ফাউন্ডেশনের সভাপতি সুমন চন্দ্র মিস্ত্রি বলেন, ২৫৬টি সংগঠনের মধ্য থেকে যাচাই-বাছাই শেষে এবার ১৫ জন নারীকে ইন্সপায়ারিং উইমেন ভলান্টিয়ার অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়। সেখানে প্রথম পুরস্কার পেয়েছেন সুস্মিতা অধিকারী। ইউএনভি বাংলাদেশ, ভিএসও বাংলাদেশ, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, ইউএন উইমেন বাংলাদেশ এবং একশনএইড বাংলাদেশ যৌথভাবে এ সম্মাননা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ২২ আগস্ট রাজধানীর আগারগাঁওয়ের এলজিইডি ভবনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ পুরস্কার তুলে দেওয়া হয় সুস্মিতার হাতে।

হাতেখড়ি ফাউন্ডেশনের বর্তমানে সহসভাপতির পদে আছেন সুস্মিতা অধিকারী। ইন্সপায়ারিং উইমেন ভলান্টিয়ার অ্যাওয়ার্ডের পুরস্কার হিসেবে পাওয়া এক লাখ টাকার পুরোটাই সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কল্যাণে ব্যয় করার আগ্রহ তাঁর। এ জন্য একটি তহবিল গঠন করার ইচ্ছা সুস্মিতার। শিশুদের সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে বেশ কিছু বিষয়ে বাস্তব অভিজ্ঞতা হয়েছে এই তরুণীর। আর তাই সেসব দিকে বিশেষ নজর দিতে চান তিনি। সুস্মিতা অধিকারী বলেন, ‘জেলেপল্লিতে বসবাস করা বেশির ভাগ মানুষই জেলে। তাঁরা তাঁদের সন্তানদের বিদ্যালয়ে পাঠাতে চান না । কিশোর বয়সে শিশুরা পড়াশোনা ছেড়ে বড়দের সঙ্গে জেলেনৌকায় নদীতে মাছ ধরতে যায়। অজ্ঞতা ও অভাবের কারণে প্রতিবছর অনেক শিশু বিদ্যালয় থেকে ঝরেও পড়ে। আমরা সেসব বাড়িতে গিয়ে অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলি। তাঁদের সন্তানদের কেন পড়াশোনা করানো জরুরি, সেটা বুঝিয়ে স্কুলে ফেরানোর চেষ্টা করি।’

সুস্মিতা যোগ করেন, এসব শিশুকে নিয়ে কাজ করতে গিয়েই বুঝেছি, প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিশুরা পাঠ্যবই ছাড়া অন্য কোনো বই পড়ার সুযোগ পাচ্ছে না। অথচ পাঠ্যবই পড়তে পড়তে একসময় একঘেয়েমি আসাই স্বাভাবিক। সেখান থেকে শিশুরা পড়াশোনায় অমনোযোগী হয়ে পড়ে। এসব দিক বিবেচনা করে গড়ে তোলা হয়েছে উপকূল পাঠাগার। যেখানে শিশুরা পরিচিত হচ্ছে ল্যাপটপ, ট্যাব, প্রজেক্টরের মতো আধুনিক প্রযুক্তির সঙ্গে।

শিশুদের জন্য আরও নানা রকম প্রকল্প আছে সুস্মিতাদের হাতেখড়ি ফাউন্ডেশনের। এর মধ্যে একটি প্রকল্প ‘স্বপ্নপূরণ’। বর্ষা মৌসুমে শিশুরা যাতে বিদ্যালয়ে যেতে পারে, সে জন্য দেড় শতাধিক শিশুকে রঙিন ছাতা উপহার দেওয়া হয়েছে স্বপ্নপূরণ প্রকল্পের মাধ্যমে। শিশুদের মধ্যে দেশপ্রেম বাড়াতে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক শিশুতোষ চলচ্চিত্র দেখানো হয়। আর এসব কাজের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত থাকেন সুস্মিতা অধিকারী।

সুস্মিতা বলেন, ‘করোনা মহামারির সময়ে শিশুদের জীবন খুব একঘেয়ে হয়ে ওঠে। বিদ্যালয় অনেকদিন বন্ধ থাকার সময়ে আমরা শিশুদের খোঁজখবর রেখেছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে জেলে পরিবারের শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে খেলাধুলার আয়োজন করেছি। ফল উৎসব করেছি।’

নিজের পড়াশোনার কারণে সুস্মিতা বর্তমানে ঢাকায় আছেন। তবে সুযোগ পেলেই ছুটে যান পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায়। জেলেপল্লির শিশুদের নিয়ে দিন কেটে যায় আনন্দেই। স্বপ্ন দেখেন, জেলেপল্লির শিশুরা একদিন শতভাগ পড়াশোনায় আগ্রহী হবে। মাছ ধরার নৌকা ছেড়ে সুনাম বয়ে আনবে পরিবার ছাড়িয়ে দেশের জন্য।