বিজ্ঞাপন

ব্র্যান্ড সেন্স

default-image

আমাদের দেশের ক্রেতা মনোভাব অনেক ক্ষেত্রে আর্থিক অবস্থার ওপর ভিত্তি করে ভাগ করা সম্ভব হয় না একটি মাত্র কারণে; তা হচ্ছে এই ব্র্যান্ড সেন্স। বিগত সময়ের বিশ্লেষণ ও জনপ্রিয় ট্রেন্ডগুলো দেখে সহজেই বলা যায়, অধিকাংশ ক্রেতার ব্র্যান্ড সেন্স নেই। তার উৎকৃষ্ট উদাহরণ, ভারতীয় বা পাকিস্তানি ক্যাটালগের সালোয়ার কামিজ কেনার হিড়িক। এমন না যে টাকা কম লাগে, বরং অনেক ক্ষেত্রে দেশীয় ব্র্যান্ডের পোশাকের থেকে বেশিই লাগে। একইভাবে ছেলেদের বেলায়ও রয়েছে চাইনিজ বা থাই প্রোডাক্ট কেনার আগ্রহ। যে কারণে অনেক সময় ব্র্যান্ডগুলো নতুন ট্রেন্ডের ব্যাপারে ভাবতে ভয় পায়, বরং অনুসরণ করে নিরাপদ অবস্থানে থাকে। তাতে অন্তত বিক্রিটা ঠিক থাকে।

ব্র্যান্ড লয়ালটি

default-image

আমাদের মধ্যে ব্র্যান্ড লয়ালটির বড়ই অভাব। তার প্রথম কারণ নিজে কোন স্টাইলের অনুসরণকারী, তা না বোঝা। যেমন কেউ পপ ফ্যাশন প্রোডাক্টও কেনে আবার ক্ল্যাসিকও কেনে। কারণ সে শুধু জানে এসব চলে, মিডিয়াতে পরতে দেখে। তাই নির্দিষ্ট কোনো ব্র্যান্ড তার দরকার নাই। ‘কমে পাওয়া যাবে, অফার আছে’ ইত্যাদি মনোভবের জনপ্রিয়তা বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আমাদেরও আছে। কিন্তু আমাদের কোনো কোনো ক্ষেত্রে একটু বেশিই, তাই ব্র্যান্ডের নাম-মান ম্যাটার করে না অনেক সময়। এর জন্য অবশ্য আমাদের অর্থনৈতিক অবস্থাকে দায়ী করাই যায়। কারণ আমাদের বেশির ভাগই তো মধ্যবিত্ত।

চকচক করলেই সোনা হয়

default-image

জ্বি, ঠিকই পড়েছেন। আমাদের একটা বিরাট সংখ্যায় ক্রেতার মনোভব এমনই যে ‘চকচক করলেই সোনা’। উদাহরণ আগেই দিয়েছি। ওই যে অনেক কাজ করা ঝকমকা ডিজাইনের পাকিস্তানি বা ভারতীয় জামা। আর ঝিকিমিকি রঙের থাই বা চাইনিজ টি-শার্ট, প্যান্ট বা জুতা। এখানে বলার আছে দুটো বিষয়। প্রথমত, আমাদের জ্ঞান উপমহাদেশের বাইরে আমাদের নিয়ে যেতে পারেনি; মানে আমরা গ্লোবাল ফ্যাশনের বাইরে। দ্বিতীয়ত, আমাদের নিজেদের কৃষ্টি-সংস্কৃতি নিয়েও আমাদের পরিপূর্ণ আগ্রহ নেই। থাকলে আমরা এমন দোঁআশলা হতাম না। সেকেন্ডারি ট্রেন্ড দ্বারা প্রভাবিত হতাম না। হয় আন্তর্জাতিক মূলধারার ফ্যাশন অনুসরণ করতাম অথবা নিজেদের সমৃদ্ধ সংস্কৃতির কিছু ধরে রাখতাম। তাই যত দিন পর্যন্ত চকচক করলেই সোনা হচ্ছে, তত দিন পর্যন্ত নিজেদের ফ্যাশন করা কঠিন।

এবারের ঈদ ট্রেন্ডেও চকচক করলে সোনা হয়েছে। ব্র্যান্ড লয়ালটি কম দেখা গেছে। তাই ট্রেন্ডও থেকে গেছে সেকেন্ডারি। সব মিলিয়ে বলা যায়, আমাদের ক্রেতা মনোভাব বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দ্বিতীয় স্তরের ফলোয়ার হয়ে থাকতে বেশি পছন্দ করে।

ফ্যাশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন