বিজ্ঞাপন

গ্রীষ্মের দাবদাহ চলমান। হঠাৎ কালবৈশাখীর ঝাপটায় কিছুটা প্রশান্তির ছোঁয়া পাওয়া গেলেও তাপমাত্রা প্রতিদিন যেন বেড়েই চলছে। অস্বস্তিকর গরমের সঙ্গে নাগরিক ব্যস্ততা তো থাকছেই, সঙ্গে নিজেকেও রাখতে হবে সতেজ আর উৎফুল্ল। প্রয়োজন আরামের পোশাক। অনেকেই নিজের অজান্তে বা অভ্যাসবশত কিছু কিছু ভারী পোশাক গ্রীষ্মে ব্যবহার করে, বিশেষ করে প্যান্ট। আবহাওয়া পরিবর্তনের সঙ্গে শার্ট, টি-শার্ট বা পোলো শার্টগুলো যেভাবে আমরা পাল্টে ফেলি। বলা যায়, সেদিক থেকে প্যান্টের ক্ষেত্রে অনেকেই কিছুটা উদাসীন। আবার রয়েছে কিছু ভুল ধারণা।

default-image

ডেনিম নিয়ে অনেকের মধ্যে কিছু ভুল ধারণা দেখা যায়। কারণ, ডেনিম পোশাক বলতে সাধারণভাবে একটু ভারী পোশাকই বোঝেন সবাই। কিন্তু বিভিন্ন ঋতু বা আবহাওয়ার বিষয়টি মাথায় রেখেও এখন তৈরি হয় ডেনিম পোশাক, বিশেষ করে প্যান্ট। যারা ট্রেন্ডি ফ্যাশনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিজেকে মানানসই করে তুলতে চায়, তাদের জন্য এগুলো পরিধেয় হিসেবে চমৎকার। সামার ডেনিমগুলো সাধারণভাবেই বেশ হালকা ও ঢিলেঢালা। এই ধারায় স্ট্রেইট কাট প্যান্ট আবারও ট্রেন্ডি হয়ে উঠছে। কারণ, গরমে ন্যারো কাট, ফিটেড বা স্কিনি প্যান্ট খুব একটা স্বস্তিদায়ক নয়।

আশির দশকের থ্রেড কাট জিনসও ফিরে আসছে ট্রেন্ডে। এমনকি কিছু কিছু আন্তর্জাতিক ফ্যাশন ব্র্যান্ড পরীক্ষামূলকভাবে টাইডাই, স্ট্রাইপড এবং কালার শেড ডেনিমও বাজারে ছেড়েছে। এ ছাড়া কয়েক বছর ধরে ডিস্ট্রেসড ডেনিম, জগার এবং সিগারেট জিনসও রয়েছে ট্রেন্ডে। এ ধরনের ডেনিমও অনেক স্বাচ্ছন্দ্যের। তাই তো অনেকে ডিস্ট্রেসড ডেনিম, জগার, ফেড ডিস্ট্রেসড জিনসকে রাখছেন পছন্দের তালিকায়।

ছেলেদের প্যান্টের ক্ষেত্রে অনেক সময় ফরমাল ও ক্যাজুয়াল ঠিক আলাদা করে বলা যায় না। যদিও এ ক্ষেত্রে জিনসকে বাদ দিতে হবে তালিকা থেকে। গরমের ক্যাজুয়াল প্যান্ট বলতে বর্তমান সময়ে গ্যাবার্ডিন প্যান্টকেই বোঝানো হয়। ট্রাউজার থাকতে পারে পছন্দের তালিকায়। ট্রাউজারেরও আছে কয়েক পদ। যাঁরা ট্রাউজার বলতে শুধু স্পোর্টস ট্রাউজার বোঝেন, তাঁদের ধারণাও কিন্তু ভুল।

default-image

কার্গো ট্রাউজারও এ রকম ট্রাউজারের মধ্যে পড়ে। যেগুলো মোবাইল প্যান্ট বা ট্রাউজার হিসেবেও বেশ পরিচিত। পরিবেশ বুঝে পরতে পারেন বিভিন্ন রকমের ট্রাউজার, যা গরমে সবচেয়ে বেশি স্বস্তি দেবে। ফুল প্যান্টের বিকল্প হিসেবে আড্ডা বা ঘোরাঘুরিতে এসব প্যান্টের থ্রি-কোয়ার্টার ভার্সনও হতে পারে বেশ আরামদায়ক। এ ছাড়া রয়েছে বেশ কয়েক ধরনের প্যান্ট, যেগুলো গরমে বেশ উপযোগী। যেমন স্লিম বা রেগুলার ফিট গ্যাবার্ডিন ও সোয়েটপ্যান্টস। এগুলো আবার প্যাটার্ন বদলে ভিন্ন নামে জায়গা দখল করেছে ট্রেন্ড্রে।

যেমন অনেকে চিনোস নামের একধরনের প্যান্ট পরছেন, যার মিল রয়েছে অনেকটা জগার এবং সোয়েটপ্যান্টের সঙ্গে। কর্মক্ষেত্রে কার্গোর মতো প্যান্ট বা ট্রাউজার না পরতে চাইলে অথবা পরার সুযোগ না থাকলে বেছে নিতে পারেন চিনোস। অ্যাশ, খাকি, বিস্কুট কালারের মতো হালকা রঙের চিনোস এখন ফ্যাশনে ইন, আর প্রতিটি প্যান্টের ডিজাইন ও ফ্যাব্রিকের মাঝে রয়েছে নতুনত্ব।

default-image

প্যান্টের সঙ্গে চাই সময়োপযোগী জুতা। গরমের সময় ক্যাজুয়াল পোশাকের সঙ্গে স্লিপারই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ। চামড়া বা রেকসিনের স্লিপারের সুবিধা হচ্ছে, এটি পায়ে চাপিয়ে অনেক জায়গায় সহজেই অংশগ্রহণ করা যায়। তবে সবক্ষেত্রে স্লিপার মানানসই নয়। আবার অফিস গেটআপের সঙ্গে ফরমাল জুতা পরার বাধ্যবাধকতা তো আছেই। তাই প্যান্টের ধরন-গড়নের সঙ্গে মিলিয়ে পরতে হবে জুতা। না হলে নিজের ফ্যাশন স্টেটমেন্ট সম্পূর্ণ হবে না।

ফ্যাশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন