বিজ্ঞাপন

ছিঁড়ে যায়। চলতি ট্রেন্ডের সঙ্গে যায় না। ফাস্ট ফ্যাশনের ফলে ওয়ার্ডরোব নতুন জামায় ভরে উঠছে। কিন্তু পৃথিবী হয়ে উঠছে বসবাসের অযোগ্য। তাই পুরোনো কাপড় ভাগাড় বা সমুদ্রে না ফেলে বানিয়ে ফেলুন নতুন কিছু। সেটা আপনার মানিব্যাগ, মন আর বিশ্ব—সবার জন্যই ভালো। একটা পুরোনো কামিজ, যেটা হয়তো আর গায়ে ঢুকছে না, সেটা মাঝখান থেকে কেটে ফেলুন। পছন্দসই লেস লাগিয়ে নিন। হুক বা বোতাম জুড়ে দিয়ে পরতে পারেন কটি হিসেবে। চাইলে বাদ দিতে পারেন হাতা দুটোকেও।

default-image

শাড়ি দিয়ে জামা বানানোর আইডিয়া পুরোনো। নতুন করে দেওয়ার নেই। বাংলাদেশের মেয়েরা এই কাজে ওস্তাদ। একটা শাড়ি কেটে বোনেরা বা বান্ধবীরা একই রকম জামা বানিয়েছেন, এমন উদাহরণ হরহামেশাই পাওয়া যাবে। এমনকি শাড়ি কেটে জুটি বেঁধে বানাতে পারেন কামিজ আর পাঞ্জাবিও। শাড়ির আঁচলের ভারী অংশ দিয়ে হতে পারে অনেক কুচি দিয়ে ঘেরওয়ালা চমৎকার একটি আনারকলির ওপরের অংশ। পুরোনো কাতান শাড়ি কেটে সিম্পল জামায় লেস হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন। ওড়নার বর্ডারেও জুড়ে দিতে পারেন সেটি।

default-image

আমাদের মা, নানি, দাদিরা তো সুতি শাড়ি আর ওড়না দিয়ে কাঁথা বানাতে ওস্তাদ। ভেতরের দিকে বেশি পুরোনো কাপড়, আর ওপরের দিকে কম পুরোনো কাপড়। এমনকি সেই কাঁথা যখন পুরোনো হয়ে যায়, ওপরের দিক থেকে সুতা উঠে যায়, তখন আবার সেটিকে নতুন একটা কাপড়ে মুড়ে সেলাই করে নতুন কাঁথা বানিয়ে ফেলা যায়। আর একরঙা কাপড় দিয়ে মুড়ে যদি তার ওপর নকশা করেন, তাহলে তো কথাই নেই।
কয়েকটি পুরোনো কাপড় কেচে শুকিয়ে নতুন করে ডাই করে অথবা না করে বানিয়ে ফেলতে পারেন বর্ণিল ঝোলানো নকশা করা ব্যাগ। ব্যাগের ওপরে থাকবে নানা রঙের, নানা ধরনের কাপড়ের সম্ভার। যেকোনো গেট টুগেদারে সেই ব্যাগ হয়ে উঠতে পারে আলোচনার টপিক।

default-image

পুরোনো কাপড় দিয়ে হতে পারে রঙিন কুশনও। একেকটি কুশন একেক রকম এটিই ড্রয়িংরুমের চলমান ট্রেন্ড। আর অতিরিক্ত পুরোনো জামাকাপড় কুচি কুচি করে কেটে পুরে ফেলতে পারেন সেই কুশনের পেটের ভেতর। পুরোনো জামা কেটে ডাইনিং টেবিলের ম্যাট বা পাপোশও বানিয়ে নিতে পারেন। ওড়না, শাড়ি দিয়ে বানিয়ে নিতে পারেন পর্দাও। ছেলেদের পুরোনো ফুলপ্যান্ট হয়ে যেতে পারে থ্রি কোয়ার্টার বা হাফপ্যান্ট। পুরোনো সোয়েটার থেকে উল খুলে বানিয়ে নিতে পারেন মাফলার।

আগে গ্রাম বা মফস্বলে পুরোনো কাপড়ের বদলে পাওয়া যেত বাসনকোসনসহ নানা কিছু। এখন সেটা উঠে এসেছে অনলাইনে। এমন অনেক সাইট আছে, যেখানে আপনি পুরোনো কাপড় বেচতে পারেন। আবার পুরোনো জামা বদলে পেতে পারেন অন্য কারও অন্য কিছু, যেটা আপনার খুবই মনে ধরেছে।

এখানে একটা মজার ব্যাপার হচ্ছে যে পুরোনো পোশাক দিয়ে আপনি যা–ই বানান না কেন, পৃথিবীতে সেটা এক পিসই।

default-image

একটা ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা দিয়ে শুরু করেছি। আরেকটি ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা দিয়ে লেখাটা শেষ করি। ব্রাজিলের সমর্থক হিসেবে কোপা আমেরিকার ফাইনালে ব্রাজিল–আর্জেন্টিনা ম্যাচের আগে আলমারি খুলে সব জামাকাপড় নামালাম। উদ্দেশ্য পুরোনো ব্রাজিলের জার্সিটা খুঁজে বের করা। না পেয়ে আম্মুকে ফোন করলাম। আম্মু বললেন, ‘আমি তোমার বাসা থেকে আসার সময় তোমার ব্রাজিলের জার্সি, দুটো পুরোনো টি-শার্ট, তোমার ভাইয়ের আর্জেন্টিনার জার্সি আর একটা শার্ট নিয়ে এসেছি। সেগুলো দিয়ে আমি ফার্নিচার মুছি, ঘর মুছি।’

ফ্যাশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন